• মঙ্গলবার   ০২ মার্চ ২০২১ ||

  • ফাল্গুন ১৭ ১৪২৭

  • || ১৮ রজব ১৪৪২

শরীয়তপুর বার্তা

ক্যারিবীয়দের হোয়াইটওয়াশের অপেক্ষায় বাংলাদেশ

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ২৫ জানুয়ারি ২০২১  

তিন ওয়ানডেতেই বাংলাদেশের সামনে মাথা তুলে দাঁড়াতে পারেনি ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ২৯৮ রানের বড় লক্ষ্যের বিপরীতে জয়ের লক্ষ্যে না হলেও ওয়েস্ট ইন্ডিজকে সম্মানজনক পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন রোভম্যান পাওয়েল। তারপরেও শেষ রক্ষা হয়নি। ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হোয়াইটওয়াশ করলো বাংলাদেশ।

৪৭ রানে ব্যাট করতে থাকা এই ব্যাটসম্যানকে সাজঘরে ফিরিয়েছেন সৌম্য সরকার। এলবিডাব্লিউ হয়েই ফিরেছেন পাওয়েল।  ক্যারিবীয়দের ১৭৭ রানে অলআউট করে বাংলাদেশ। এর ফলে ১২০ রানের বড় ব্যবধানে জয় পায় বাংলাদেশ।

অবশ্য ৩০তম ওভারেই ঘটেছে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা। গ্রোয়িন ইনজুরিতে নিজের ওভার অসম্পূর্ণ রেখেই মাঠ ছেড়েছেন সাকিব। তার পরের ওভারেই ৫ রানে ব্যাট করতে থাকা জাহমার হ্যামিল্টনকে তুলে নেন মিরাজ।

শুরুতেই ওয়েস্ট ইন্ডিজকে বিপদে ফেলে দেয় বাংলাদেশ। ৩০ রানে জোড়া আঘাতে শুরুতে দুই উইকেট তুলে নেন মোস্তাফিজুর রহমান।  দ্বিতীয় ওভারে কিওর্নকে অফ স্টাম্পের বাইরে বল করেছিলেন। খোঁচা মারতে গিয়েই বিদায় নেন কিওর্ন। তিনি ৮ বল খেলে ফিরেছেন ১ রান করে। আরেক ওপেনার সুনিল আম্ব্রিস দুটি বাউন্ডারি মেরে রান বাড়িয়ে নিলে তাকেও থিতু হতে দেননি মোস্তাফিজ। ষষ্ঠ ওভারে তাকে এলবিডাব্লিউ করেছেন কাটার মাস্টার।

তার পর এনক্রুমাহ বনার ও কাইল মেয়ার্স জুটিও বেশিক্ষণ থিতু হতে পারেনি। মেয়ার্সকে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলে তাকে সাজঘরের পথ ধরিয়েছেন আগের ম্যাচের সেরা বোলার মিরাজ। তার ঘূর্ণিতে পুরোপুরি পরাস্ত হয়েছিলেন মেয়ার্স। রিভিউ নিয়েও বাঁচতে পারেননি, ফিরে গেছেন ১১ রানে।

বিপদে পড়ে যাওয়া ক্যারিবীয়দের এগিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন জেসন-বনার জুটি। তাদের বিদায় দিয়ে এই জুটি ভেঙে দিয়েছেন আজকে সুযোগ পাওয়া সাইফ। ১৭ রানে ব্যাট করতে থাকা জেসনকে মুশফিকের তালুবন্দি করেছেন প্রথমে। এর পর ৩১ রান করে ফেলা বনারকেও বিদায় দিয়েছেন সাইফ। করেছেন বোল্ড। অবশ্য বনার আগেই ফিরতে পারতেন। দুবার ভাগ্য সঙ্গী ছিল বলে বেঁচে গেছেন। একবার লেগ বিফোরের আবেদনে রিভিউ নিয়ে বেঁচেছেন। আরেকবার তার ক্যাচ নিতে পারেননি সাকিব।

এর আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হোয়াইটওয়াশ করতে বড় লক্ষ্য ছুঁড়ে দেয় বাংলাদেশ। টস হেরেও চার অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যানের ব্যাটিং নৈপুণ্যে স্বাগতিকরা ৬ উইকেটে করে ২৯৭ রান। চট্টগ্রাম জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে যা সর্বোচ্চ সংগ্রহ!  মূলত তামিম ইকবাল, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের হাফসেঞ্চুরিতে ভর করেই বড় পুঁজি পেয়েছে স্বাগতিকরা।