• বুধবার   ১২ মে ২০২১ ||

  • বৈশাখ ২৯ ১৪২৮

  • || ৩০ রমজান ১৪৪২

শরীয়তপুর বার্তা

তারেকের পর এবার আসিফ নজরুলকে তুষ্ট করতেই প্লট চান রুমিন ফারহানা

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ২৮ আগস্ট ২০১৯  

সরকারকে অবৈধ বললেও সেই সরকারের কাছেই ১০ কাঠা প্লট আবদার করে নতুন করে সমালোচনার জন্ম দিয়েছেন বিএনপির সংরক্ষিত নারী সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা। বিএনপির পক্ষ থেকে বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করা হলেও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা বলেছেন, বিএনপি নেত্রীর এই দাবি বর্তমান সরকারকে আরেক দফা বৈধতা দিলো।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বিএনপির সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য রুমিন ফারহানা বিয়ে করবেন বলে সরকারি প্লটের দাবি করেছেন। বিয়ের আগে রুমিন ফারহানা সরকারি প্লট বরাদ্দ চান বলেই এই চিঠি লিখেছেন। তবে কাকে বিয়ে করবেন, এ নিয়ে চলছিলো নানা আলোচনা সমালোচনা। পরে জানা যায়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. আসিফ নজরুলকে বিয়ে করতে চান রুমিন ফারহানা।

এ প্রসঙ্গে কথা হয় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সঙ্গে। তিনি বলেন, বিয়ে যার যার ব্যক্তিগত ব্যাপার। এসব বিষয় মাথা ঘামানো কোনো ভাবেই কাম্য নয়। তবে আমি জানি আসিফ নজরুল বিবাহিত। কিন্তু কখন মানুষের মন পাল্টে যায়, তা বলা মুশকিল।

এ বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমেদ বলেন, রুমিন ফারহানার প্লট চাইবার বিষয় নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সোচ্চার হয়েছেন ড. আসিফ নজরুল। রুমিন ফারহানাকে নিয়ে তার কেনো এতো মাথা ব্যথা, তাই বুঝতে পারলাম না। জানিনা কতোটুকু সত্যি তবে আমিও শুনেছি, হুমায়ূন আহমেদের মেয়ে শিলাকে ছেড়ে রুমিন ফারহানাকে বিয়ে করার ইচ্ছা ব্যক্ত করেছেন ড. আসিফ নজরুল।

বিষয়টিকে ভিন্নভাবে ব্যাখ্যা করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটি থেকে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিলো শামা ওবায়েদ, মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস, নির্বাহী কমিটির সদস্য নিপুণ রায়ের মধ্যে থেকে যেকোন একজনকে সংরক্ষিত নারী আসনে মনোনয়ন দেয়া হবে। কিন্তু বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমানকে বিভিন্নভাবে তুষ্ট করতে পারায় ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা মনোনয়ন বাগিয়ে নিতে সমর্থ হয়েছেন বলেও গুঞ্জন চাউর হয়েছিলো। সত্য মিথ্যা জানি না। আমি সাধারণ রাজনীতিবিদ। রাজনীতি করছি, আর নতুন যুগের মানুষদের থেকে নতুন ভাবে রাজনীতি শিখছি। গুঞ্জনটি নিয়ে বিএনপির ভেতর এক ধরণের অস্বস্তি কাজ করছে।