• মঙ্গলবার   ২৪ নভেম্বর ২০২০ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১০ ১৪২৭

  • || ০৯ রবিউস সানি ১৪৪২

শরীয়তপুর বার্তা
১৫৮

শরীয়তপুরে মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযান অব্যাহত: ৪২ জেলে আটক

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ২২ অক্টোবর ২০২০  

শরীয়তপুর প্রতিনিধি: ১৪ অক্টোবর থেকে ৪ নভেম্বর পর্যন্ত সারাদেশের ন্যায় শরীয়তপুরে ও ইলিশ প্রজনন মৌসুমে পদ্মা-মেঘনার ৭০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে সরকার ঘোষিত মা ইলিশ শিকারের উপর  নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

শরীয়তপুরে গত ২৪ ঘন্টায় চলমান মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযানে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইলিশ ধরার অপরাধে তিন লাখ ১৫ হাজার মিটার অবৈধ কারেন্ট জাল সহ ৪২ জেলেকে আটক করা হয়েছে। আটককৃত জেলেদের মধ্যে বেশিরভাগই অন্য জেলা থেকে ভাড়ায় মাছ ধরতে এসেছেন। শরীয়তপুরে জেলার মা ইলিশের প্রজনন এলাকার ৭০ কিলোমিটারের মধ্যে পৃথকভাবে বিভিন্ন স্থানে জেল মৎস্য অধিদপ্তর এর নেতৃত্বে নড়িয়া, জাজিরা, ভেদেরগঞ্জ, ডামুড্যা ও গোসাইরহাট উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ও জেলা পুলিশ কোস্টগার্ড, নৌ পুলিশের যৌথ অভিযানে এ সময় ৩ লাখ ১৫ হাজার মিটার কারেন্ট জাল, ৭০ কেজি মা ইলিশ, তিনটি স্পিড বোর্ড জব্দ, ৭০ চলার নষ্ট করা সহ ৪২ জেলেকে আটক করা হয়েছে।

গতকাল রাতে শরীয়তপুরের পদ্মা মেঘনা নদীতে পৃথকভাবে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা, পুলিশ প্রশাসন ও কোস্টগার্ডের সমন্বয় অভিযান পরিচালনা করা হয়। পৃথক অভিযানে, জাজিরা উপজেলার পদ্মা নদী থেকে তিন লাখ মিটার কারেন্ট জাল, তিনটি স্পিড বোর্ড, ২০ কেজি মাছসহ ১৫ জেলেকে আটক ও ৭০ মাছ ধরার ট্রলার নষ্ট করে দেয়া হয়। নড়িয়া উপজেলার পদ্মা নদীতে অভিযান চালিয়ে ১০ হাজার মিটার কারেন্ট জাল ও ৩০ কেজি মাছ সহ ১৪ জেলেকে আটক করা হয়। গোসাইরহাট উপজেলার মেঘনা নদীতে উপজেলা মৎস্য অধিদপ্তর এর নেতৃত্বে নৌ পুলিশ ও কোস্টগার্ডের অভিযানে ১৭ মিটার কারেন্ট জাল ২০ কেজি ইলিশ সহ ১৮ জনকে আটক করা হয়।

পরে আটককৃত জেলেদেরকে বিভিন্ন মেয়াদের সাজা, জব্দকৃত জাল আগুনে পুড়িয়ে ধ্বংস ও ইলিশ মাছ স্থানীয় বিভিন্ন এতিম খানা মাদ্রাসায় বিতরণ করা হয়।

স্ব-স্ব উপজেলা নিবার্হী ম্যাজিস্ট্রেটৈর আদেশে আটককৃতদের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড, জাল গুরু আগুনে পুড়িয়ে ধ্বংস ও ইলিশ মাছ বিভিন্ন এতিম খানা মাদ্রাসায় দেয়া হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেন জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আব্দুর রউফ।

শরীয়তপুর বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর