বৃহস্পতিবার   ২১ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৬ ১৪২৬   ২৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

শরীয়তপুর বার্তা
৯৪৭

শীতের সঙ্গী শাল

প্রকাশিত: ২৯ নভেম্বর ২০১৮  

শীত আসছে। সকাল-সন্ধ্যায় তার আগমনী বার্তা পাওয়া যায়। এ সময় অনায়াসে আপনার সঙ্গী হতে পারে ফ্যাশনেবল হালকা একটি শাল।  শুরু হলো শীতের আমেজ। আর সেই সঙ্গে বেড়েছে শীতের পোশাকে ফ্যাশনে সচেতনতা। শীতের কুয়াশার আদরে নিজেকেও জড়িয়ে নিতে ইচ্ছে করে শাল বা চাদরে। ফ্যাশনে ছেলেদের তুলনায় মেয়েদের তো একটু বেশিই পছন্দ পাতলা শাল বা চাদর। পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে বিভিন্ন রঙের শাল পরছে মেয়েরা শীত ফ্যাশনকে আরও একটু বৈচিত্র্যময় করার জন্য। দেশি-বিদেশি, পাতলা বা চওড়া সব ধরনের শালই এখন জনপ্রিয়। শাড়ি, কামিজ, ফতুয়া, স্কার্ট সবকিছুর সঙ্গে মানিয়ে যায় শাল। এর বিভিন্ন রঙ, নকশা, ডিজাইন সব বয়সী নারীদের আকৃষ্ট করে। ছেলেরাও খুব একটা পিছিয়ে নেই চাদর বা শালের ব্যবহার। শার্ট বা পাঞ্জাবির সঙ্গে গায়ে জড়িয়ে নিচ্ছে চাদর বন্ধুদের সঙ্গে চায়ের আড্ডায়। আর তাই বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসগুলো নতুন রঙে নতুনরূপে শাল নিয়ে এসেছে মার্কেটে। রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি শপিং কমপ্লেক্স ঘুরে দেখা গেল বিভিন্ন ব্যান্ডেড ফ্যাশন হাউনগুলোতে শালের বিভিন্ন ধরন। ‘সাদাকালো’র শোরুম ঘুরে দেখা গেল তাদের রয়েছে কুশিকাটা, উল, কটন এবং খদ্দরের তৈরি বিভিন্ন ধরনের শাল যা ছেলেমেয়ে উভয়ের জন্যই। ডিরেক্টর আজহারুল হক আজাদ বলেন, ঢাকার বিভিন্ন স্থানে যেমন ধানমন্ডি, গুলশানে তাদের শোরুম রয়েছে। তাদের শালের দাম পড়বে ৮৮০-২১৫০ টাকার মধ্যে উল ১১৫০-২১৫০, কুশিকাটা ২১৫০। সুতির মধ্যে রয়েছে স্কিনপ্রিন্ট, স্কিনব্লক এসবের দাম ১০৮০ থেকে ১৫০৮০ টাকা।

‘রঙ বাংলাদেশ’ ঘুরে দেখা গেল তাদের রয়েছে জয়পুরী, কটন, স্কিনপ্রিন্ট ও খদ্দরের শাল। কটন স্কিনপ্রিন্ট ৬০০-১৪০০ টাকা, জয়পুরী ১১৬০ ফিক্সড, খদ্দর ১০০০-১৪০০ টাকা। ঢাকার বিভিন্ন স্থানে যেমন যমুনা ফিউচার পার্ক, মোহাম্মদপুর, ধানমন্ডি , বেইলি রোডে তাদের শোরুম রয়েছে।

‘রঙ বাংলাদেশের’ স্বত্ত্বাধিকারী সোমিক দাস জানায়, তারা এবার শালে নিয়ে এসেছেন ‘ফ্লোরাল মোটিভ’। যার মধ্যে থাকবে ফুলের বিভিন্ন কাজ। বিভিন্ন রঙের চাদরে বিভিন্ন রঙের ফুলের কাজই এবারের শালের বিশেষত্ব। প্রতিবছর বিভিন্ন আঙ্গিকে তারা শাল নিয়ে আসেন। এবারের বিশেষত্ব ‘ফ্লোরাল মোটিভ’।

অঞ্জনস এবং কে-ক্রাফট ঘুরেও দেখা গেল বাহারি শাল সাধ্যের মধ্যে বিভিন্ন দরদামে। অঞ্জনসে গিয়ে দেখা যায় তাদের প্রাধান্য লিনেন কটনের ওপর মেশিন এমব্রয়ডারি, কারচুপি, সিকন প্রিন্ট, ব্লকপ্রিন্ট, হ্যান্ডস্টিচ শালের যেগুলোর দাম হবে ৯৫০-২৫০০ পর্যন্ত। আর বেশি এমব্রয়ডারি হলে সেটা ৬২৩৫ টাকা পর্যন্ত হতে পারে। কে-ক্রাফটে রয়েছে তাঁতের শাল। কটন, বাটিকও রয়েছে। যার দাম ৫৯৫-১২০০ টাকা পর্যন্ত।

এ ছাড়া শাহবাগ আজিজ সুপার মার্কেট, বনানী ১১ নম্বর রোড, বেইলি রোড, মিরপুর-১০, নিউমার্কেট, বঙ্গবাজার, ধানমন্ডি হকার্স এসব মার্কেটে ফ্যাশন হাউসগুলোর তুলনায় একটু কম দামে পাওয়া যাবে শীতের শাল। এগুলোতে কটন শাল ৫০০-৭০০, খদ্দর ৬৫০-১৫০০ টাকা, সিল্ক শাল ৭০০-২০০০ টাকা, কাশ্মীরি শাল কোয়ালিটি ভেদে দাম পড়বে ৬০০ থেকে ৩০০০ টাকা পর্যন্ত। তবে ধানমন্ডি  হকার্স, নিউমার্কেট, বঙ্গবাজারে কিছুটা কম দামে শাল পাওয়া যায়। তবে শাল শুধু ফ্যাশনের জন্য কিনলেই চলবে না, তার যত্ন এবং পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার প্রতিও হতে হবে সচেতন। কিছু শাল আছে যেগুলোকে শুধু ড্রাইওয়াশ করতে হয়। পানিতে সরাসরি ধুতে দিলে নষ্ট হয়ে যায়। শাল ধোয়ার পর ভালো করে শুকিয়ে আলাদা পলিব্যাগ বা কাপড়ের ব্যাগে সংরক্ষণ করে রাখতে হয়।