• শুক্রবার   ১৮ জুন ২০২১ ||

  • আষাঢ় ৪ ১৪২৮

  • || ০৮ জ্বিলকদ ১৪৪২

শরীয়তপুর বার্তা

সরকার সারাদেশে ৬৬,১৮৯টি পরিবারকে ঘর দিয়েছে- নাহিম রাজ্জাক 

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ৮ জুন ২০২১  

শরীয়তপুর প্রতিতিনিধিঃ
শরীয়তপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নাহিম রাজ্জাক বলেছেন, শেখ হাসিনার বাংলাদেশে কোন মানুষই গৃহহীন থাকবেনা।

 তিনি ৮ জুন মঙ্গলবার তার নির্বাচনী এলাকা গোসাইরহাট উপজেলার কুচাইপট্রি ইউনিয়নের চরজানপুরে আশ্রয়ন প্রকল্প-২ এলাকা পরিদর্শন কালে এসব কথা বলেন। নাহিম রাজ্জাক বলেন, বাংলাদেশ সরকার সারাদেশে ৬৬ হাজার ১৮৯টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে আধা-পাকা ঘর দিয়েছে। প্রথম দফায় ৬৬ হাজারের বেশি মানুষকে ঘর দেয়া হয়েছে। দ্বিতীয় দফায় আগামী মাসে আরো এক লক্ষ ঘর তৈরি করে দেয়া হবে। এসব বাড়িঘর ছাড়াও ৩৬টি উপজেলায় ৭৪৩টি ব্যারাক নির্মাণের মাধ্যমে আরও ৩ হাজার ৭১৫টি পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়েছে। তিনি বলেন, মুজিব বর্ষের উপহার হিসেবে সব মিলিয়ে ৬৯ হাজার ৯০৪টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমিসহ ঘর তৈরি করে দিচ্ছে সরকার।

সরকারের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পে জেলার স্থানীয় প্রশাসনের সহায়তা নিয়ে ভূমিহীন এবং গৃহহীন ব্যক্তিদের একটা তালিকা তৈরি করা হয়। যার সাথে জেলা প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসনসহ সকল সরকারি-বেসরকারি দপ্তর-সংস্থা, জনপ্রতিনিধি সবাই সম্পৃক্ত ছিলেন। তাদের মাধ্যমে তালিকা করা হয়। তার ভিত্তিতে বাংলাদেশের ৬৪টা জেলার ৪৯২টা উপজেলায় ভূমিহীন-গৃহহীন যে পরিবারের সংখ্যা সেটা আমরা পেয়েছি তা হলো ২ লক্ষ ৯৩ হাজার ৩৬১ জন। 

আমরা একটা নীতিমালা করেছি প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনক্রমে। সেই নীতিমালায় বলা আছে বিধবা, প্রতিবন্ধী, অসহায়, বয়স্ক তাদের অগ্রাধিকার দিবে। আবার এই তালিকা থেকে যারা অতি-দরিদ্র তাদের জন্য আগে ঘরটা করে দেয়া হয়েছে। দুই রুমের আধা-পাকা ঘরের প্রতিটির নির্মাণ ব্যয় ১ লক্ষ ৭১ হাজার টাকা।

মালামাল পরিবহনের জন্য অতিরিক্ত ৪ হাজার টাকা দেয়া হচ্ছে। সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যলয়ের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায়। অর্থ বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে তিনটা স্থান থেকে। আশ্রয়ণ-২ প্রকল্প, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা এবং ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে এবং ভূমি মন্ত্রণালয়ের গুচ্ছ-গ্রাম প্রকল্প থেকে।

এসময় গোসাইরহাট উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান ঢালী, গোসাইরহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আলমগীর হোসাইন, উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি শাহজাহান সিকদারসহ জেলা ও উপজেলা নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। আশ্রয়ন প্রকল্পের বাসিন্দাদের জন্য কর্মসংস্থান ও তাদের জীবিকার বিষয়টি গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করা হচ্ছে বলে জানন সংসদ সদস্য নাহিম রাজ্জাক। তিনি বলেন, কৃষি জমি যাতে প্রকৃত ভূমিহীনরাই ভোগ করতে পারে সে বিষয়ে জেলা ও উপজেলা প্রশাসনকে আমি বলেছি।