• বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ ||

  • শ্রাবণ ২ ১৪৩১

  • || ০৯ মুহররম ১৪৪৬

শরীয়তপুর বার্তা
ব্রেকিং:

মেডিকেলের প্রশ্নফাঁস: আইডিয়ালের শিক্ষিকাসহ ৬ জন রিমান্ডে

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩  

মেডিকেল কলেজের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসের মামলায় মতিঝিল আইডিয়াল স্কুলের শিক্ষিকাসহ ছয়জনকে বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ডে পাঠিয়েছেন আদালত।

রোববার (১৭ সেপ্টেম্বর) শুনানি শেষে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মইনুল ইসলামের আদালত আদালত রিমান্ডের এই আদেশ দেন। একই মামলায় অপর চার আসামির রিমান্ড ও জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

গ্রেফতার ১০ আসামিরর মধ্যে রিমান্ডে যাওয়া আসামিরা হলেন- গভর্নিং বডির সংরক্ষিত মহিলা শিক্ষক সদস্য এবং সমাজ বিজ্ঞান বিষয়ের বহিস্কৃত শিক্ষিকা মাকসুদা আক্তার মালা, ডা. অনিমেষ কুমার কুণ্ড, ডা. কে এম বশিরুল হক, ডা. ইউনুচ উজ্জামান, ডা. জাকারিয়া আশরাফ ও ডা. জাকিয়া ফাবিরা।

আসামিদের মধ্যে অনিমেষ কুমার, বশিরুল হক ও ইউনুচের চারদিন এবং অপর তিন আসামির দুইদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

কারাগারে যাওয়া আসামিরা হলেন- ডা. মৈত্রী সাহা, ডা. সাবরিনা নুসরাত রেজা টুসী, ডা. মুস্তাহিন হাসান লামিয়া ও ডা. নাজিয়া মেহজাবিন টিশার।

এর আগে, ১৪ সেপ্টেম্বর মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জুয়েল চাকমা মিরপুর মডেল থানায় প্রশ্ন ফাঁসের মামলায় আসামিদের ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেন। আদালত আসামিদের উপস্থিতিতে রিমান্ড শুনানির দিন ১৭ সেপ্টেম্বর ধার্য করেন।

এদিন শুনানিকালে আসামিদের আদালতে হাজির করা হয়। তাদের পক্ষে কাজী নজিবউল্যাহ হিরুসহ কয়েকজন আইনজীবী রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন আবেদন করেন। রাষ্ট্রপক্ষ থেকে এর বিরোধীতা করা হয়। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত তিনজনের তিনদিন, অপর তিনজনের দুই দিন এবং চার আসামির রিমান্ড নামঞ্জুর করেন আদালত।

জানা যায়, গত ৩০ শে জুলাই থেকে ২০শে আগস্ট পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন জেলায় অভিযান পরিচালনা করে মেডিকেল কলেজে ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসের সঙ্গে জড়িত ১২ চিকিৎসকসহ ১৭ জনকে গ্রেফতার করেন সিআইডি সাইবার টিম। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে ১০ জন মেডিকেল প্রশ্নফাঁসের সঙ্গে জড়িত থাকার বিষয়ে বিজ্ঞ আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেছে। গ্রেফতারকৃত আসামিদের কাছ থেকে মেডিকেল প্রশ্নফাঁসের সঙ্গে জড়িত চক্রের অন্য সদস্য ও মেডিকেল প্রশ্নপত্রের মাধ্যমে অসাধু উপায়ে বিভিন্ন মেডিকেল কলেজে ভর্তি অসংখ্য শিক্ষার্থীর নাম পাওয়া যায়। এ ছাড়াও এ চক্রের মাস্টারমাইন্ড জসীম উদ্দিন ভূঁইয়া মুন্নুর কাছ থেকে উদ্ধার হওয়া গোপন ডায়েরি থেকে সারা দেশে ছড়িয়ে থাকা চক্রের সদস্যদের সন্ধান পাওয়া যায়।