• বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ ||

  • শ্রাবণ ২ ১৪৩১

  • || ০৯ মুহররম ১৪৪৬

শরীয়তপুর বার্তা
ব্রেকিং:

লুডুতে প্রেম, নেপালে বিয়ে, ভারতে ধরা

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩  

পাকিস্তানি এক তরুণীকে অবৈধ উপায়ে ভারতে ঢুকতে দেওয়া এবং তাকে ভুয়া আইডি কার্ড দেওয়ার অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছেন এক ভারতীয় তরুণ। পরে জানা যায়, পাকিস্তানি তরুণী ভারতীয় তরুণের স্ত্রী। বিবিসির খবরে বলা হয়, তিন বছর আগে লুডো খেলার সময় অনলাইনে পরিচয় হয় ২১ বছরের মুলায়ম সিং ও ১৯ বছরের ইকরা জিওয়ানির। অল্প দিনেই সম্পর্ক গড়ায় প্রেমে। তারা ভাবেননি সামনে তাদের সঙ্গে কী ঘটতে যাচ্ছে।  

ভারতের সঙ্গে প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তানের সম্পর্ক জন্ম থেকেই খারাপ। ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগের পর তিনটি যুদ্ধ জড়িয়েছে দেশ দুটি। পরিস্থিতি এখন এতটাই জটিল যে দেশ দুটি ভ্রমণে ভিসা পাওয়া কঠিন।

উপায় না দেখে গত সেপ্টেম্বরে মুলায়ম ও ইকরা নেপালে যান, যেখানে তারা বিয়ে করেন। তারপর তারা কর্ণাটক রাজ্যের রাজধানী বেঙ্গালুরু যান। সেখানেই তারা একসঙ্গে বসবাস করেছিলেন।

সবকিছু ঠিকঠাকই চলছিল। বিপত্তি বাধে চলতি জানুয়ারিতে। ভারতে অবৈধভাবে ঢোকার দায়ে গ্রেফতার হন ইকরা। তারপর ধরা পড়েন মুলায়ম। জালিয়াতি এবং যথাযথ নথি ছাড়া একজন বিদেশি নাগরিককে আশ্রয় দেওয়ার অভিযোগ আনা হয় মুলায়মের বিরুদ্ধে।

গত সপ্তাহে ইকরাকে পাকিস্তানে ফেরত পাঠানো হয়। আর মুলায়ম আছেন বেঙ্গালুরুর কারাগারে।

মুলায়মের স্বজনরা উত্তর প্রদেশে বসবাস করেন। এ ঘটনায় তারা হতভম্ব। তারা বলছেন, এখানে কোনও অসৎ উদ্দেশ্য ছিল না। স্রেফ প্রেমের টানে এমন কাণ্ড করেছেন মুলায়ম।

মুলায়মের ভাই জিৎলাল বলেন, ‘আমরা তাদের বাড়ি ফিরিয়ে আনতে চাই। ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে পরিস্থিতি বুঝতে পারি। তবে তারা যা করেছে, সেটা স্রেফ প্রেম... আর কিছুই না।

পুলিশও এমন বক্তব্যের সঙ্গে একমত। বেঙ্গালুরুর এক সিনিয়র পুলিশ কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘অবৈধ প্রবেশ এবং জালিয়াতি ছাড়াও এখানে একটা নির্ভেজাল প্রেমের গল্প আছে বলে মনে হচ্ছে।

এই প্রেমের গল্প শুরুটা হয়েছিল ২০২০ সালে, কোভিড লকডাউনের সময়।

মুলায়ম বেঙ্গালুরুতে একটি আইটি কোম্পানির নিরাপত্তা প্রহরীর কাজ করতেন। আর ইকরা পাকিস্তানের হায়দ্রাবাদ শহরের ছাত্রী ছিলেন।

অনলাইনে সাক্ষাতের পর দুজনের মধ্যে দীর্ঘ দূরত্বের সম্পর্ক শুরু হয়। এদিকে বিয়ের জন্য বাড়ি থেকে চাপে পড়েন ইকরা।

 

মন্দিরে হিন্দু রীতিতে বিয়ে করে তারা ভারতে আসেন। ছবি: টুইটার

পরে মুলায়মের সঙ্গে পরামর্শ করে দুবাই হয়ে নেপাল আসেন ইকরা। পুলিশ বলছে, সেখানকার একটি মন্দিরে হিন্দু রীতিতে বিয়ে করে তারা ভারতে আসেন।

ইকরার কাছে ভারতে থাকার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ছিল না। এ কারণে তার জন্য একটি জাল আধার কার্ডের ব্যবস্থা করেছিলেন মুলায়ম।  

পুলিশ জানায়, মুলায়ম প্রতিদিন কাজের জন্য বাইরে যেতেন, ইকরা তখন বাড়িতে থাকতেন।

প্রায়শই পাকিস্তানে মায়ের কাছে হোয়াটসঅ্যাপে কল করতেন ইকরা। এ বিষয়টি নজরে আসে পুলিশের। পরে তারা তাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে আসল ঘটনা বেরিয়ে আসে।