• শনিবার   ২৬ নভেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১২ ১৪২৯

  • || ০৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

শরীয়তপুর বার্তা
ব্রেকিং:
যারা উন্নয়ন দেখে না, তারা চাইলে চোখের ডাক্তার দেখাতে পারে- প্রধানমন্ত্রী অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে সক্ষম হয়েছি: প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আইওআরএ মন্ত্রীদের সাক্ষাৎ যোগাযোগ সম্প্রসারণে বাংলাদেশের সহযোগিতা চায় আমিরাত আ.লীগ স্বাস্থ্য খাতকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেয়: প্রধানমন্ত্রী এমপিদের ভবন প্রাঙ্গণে মীনা বাজার স্থাপন আনন্দের: স্পিকার ব্যাংকে টাকা না থাকার গুজবে চোরেরা সুযোগ নেবে: প্রধানমন্ত্রী ‘যা চাইবেন তার চেয়ে বেশি দেবো, ওয়াদা দেন নৌকায় ভোট দেবেন’ মালয়েশিয়ার নতুন প্রধানমন্ত্রীকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন সচিব সভায় ১০ নির্দেশনা দেবেন প্রধানমন্ত্রী

শিশু কাঁদলেই দিচ্ছেন প্লাস্টিকের খেলনা! বিপদ হচ্ছে না তো?

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ৭ সেপ্টেম্বর ২০২২  

প্রত্যেকটি শিশুই তার বাবা-মায়ের কাছে প্রিয়। তাই শিশুদের জেদ রক্ষাত্রে সবকিছু করতেই রাজি। আর বিশেষ করে শিশুদের খেলনার প্রতি ঝোঁক সব সময়েরই। তাই তাদের খুশি করতে বাবা-মা খোঁজেন নিত্য নতুন হরেক রকমের খেলনা। আর এই বিষয়েই সম্প্রতি একটি  গবেষণা দিচ্ছে নতুন তথ্য। কী সে তথ্য?

প্লাস্টিকের খেলনা শিশুর স্বাস্থ্যের ঝুঁকির কারণ হতে পারে তেমনটাই দাবি গবেষণা। স্থূলতা, অ্যাজমার মতো বেশ কয়েকটি অসুস্থতার শিকার হতে পারে শিশু।

বাড়িতে ছোট শিশু আছে। অফিস থেকে ফেরার সময়ে একরত্তির জন্য নানা ধরনের প্লাস্টিকের খেলনা কিনে আনছেন। শিশুও সেই খেলনা দেখে আনন্দে আত্মহারা। সারাক্ষণ ওই খেলনাগুলো নিয়েই রয়েছে সে।

কিছুতেই খেতে চাইছে না, শিশুকে ভোলাতে তার হাতে ধরিয়ে দিলেন প্লাস্টিকের খেলনা গাড়ি। খেলতে খেলতে সেই গাড়ি মুখে দিচ্ছে একরত্তি। বাড়িতে শিশু থাকলে এমন কয়েকটি ছবি প্রায়ই দেখা যায়। 

সাম্প্রতিক একটি সমীক্ষা বলছে, প্লাস্টিকের এই খেলনা আপনার সন্তানের স্বাস্থ্যের ঝুঁকির কারণ হতে পারে।

আমেরিকার প্লাইমাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা প্লাস্টিকের খেলনা নিয়ে একটি গবেষণা করেছেন। গবেষকরা জানাচ্ছেন, প্লাস্টিক মাত্রেই তা শরীরের জন্য ক্ষতিকর। প্লাস্টিকের খেলনায় গবেষকরা অ্যান্টিমনি, বেরিয়াম, ব্রোমিন, ক্যাডমিয়াম, সিসার, সেলেনিয়াম-সহ বিভিন্ন বিপজ্জনক রাসায়নিক উপাদানের উপস্থিতি পাওয়া গিয়েছে। যা শিশুর শরীরে দীর্ঘস্থায়ী কোনও ক্ষতির কারণ হতে পারে। খেলনা হাতে পাওয়া মাত্রে তা সকলের আগে মুখে দেয় শিশু। খেলনায় থাকা ক্ষতিকারক রাসায়নিক উপাদানগুলি লালার মাধ্যমে শরীরের ভিতরে প্রবেশ করে।

আরও জানা গেছে, অধিকাংশ প্লাস্টিকের খেলনা তৈরির প্রধান উপকরণ হিসাবে ব্যবহৃত হয় ফ্যাথালেটস। প্লাস্টিক নরম করে তুলতে এই উপাদানটি ব্যবহার করা হয়। 

গবেষণায় দেখা গিয়েছে, এই রাসায়নিক অ্যাজমার কারণ হতে পারে। এ ছাড়া পরবর্তী কালে স্থূলতার সমস্যাও ডেকে আনতে পারে। শুধু খেলনা নয়, প্লাস্টিকের ফিডিং বোতল ব্যবহারেও শিশুর জন্য ক্ষতিকর। 

এছাড়াও এই প্লাস্টিকের খেলনা সামগ্রীতে টক্সিনের পরিমাণ প্রায় ৮৪ শতাংশ। এই বিপজ্জনক টক্সিন শিশুর বেড়ে ওঠা, বিকাশ এমনকি পরবর্তী কালে প্রজনন ক্ষমতাকেও ব্যহত করতে পারে।