• বৃহস্পতিবার   ০১ ডিসেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৭ ১৪২৯

  • || ০৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

শরীয়তপুর বার্তা
ব্রেকিং:
বাংলাদেশ সবসময় ভারতের কাছ থেকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার পায় কর ব্যবস্থাপনা তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী ১০ টাকায় টিকিট কেটে চোখ পরীক্ষা করালেন প্রধানমন্ত্রী আইসিওয়াইএফ থেকে পাওয়া সম্মাননা প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর শিক্ষা ব্যবস্থা যাতে পিছিয়ে না যায় সে ব্যবস্থা নিচ্ছি প্লিজ যুদ্ধ থামান, সংঘাত থামাতে সংলাপ করুন: শেখ হাসিনা হানিফের সংগ্রামী জীবন নতুন প্রজন্মের রাজনৈতিক কর্মীদের দেশপ্রেম ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত করবে মোহাম্মদ হানিফ ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একজন পরীক্ষিত নেতা বাংলাদেশ যেন দুর্ভিক্ষের কবলে না পড়ে: প্রধানমন্ত্রী সংঘাত-দুর্যোগে নারীদের দুর্দশা বহুগুণ বাড়ে: প্রধানমন্ত্রী

ময়নাতদন্তের জন্য কবর থেকে কলেজছাত্র`র লাশ উত্তোলন

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ১০ অক্টোবর ২০২২  

শরীয়তপুর প্রতিনিধি :শরীয়তপুরের গোসাইরহাট উপজেলায় প্রেমিক সাহরিয়ার নাজিম জয়কে প্রেমিকার স্বামীর দেবর রাকিব সরদার মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ডেকে নিয়ে তারা পরিকল্পিত হত্যা করেছে। এমন অভিযোগ ভুক্তভোগী পরিবারের। তাই এ ঘটনায় আদালতে মামলা হলে নিহত জয়ের লাশ ২ মাস ৮দিন পর ময়নাতদন্তের জন্য কবর থেকে উত্তোলন করা হয়েছে। আজ রোববার (৯ অক্টোবর) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে গোসাইরহাট উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুজন দাস গুপ্ত ও গোসাইরহাট থানার ওসি (তদন্ত) মো. ওবায়দুল হকের উপস্থিতিতে গোসাইরহাট পৌরসভার দাশেরজঙ্গল গ্রামের কবর থেকে পুলিশ লাশ তুলে ময়নাতদন্তের জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

সাহরিয়ার নাজিম জয় (২০) শরীয়তপুরের গোসাইরহাট পৌরসভার দাশেরজঙ্গল গ্রামের জামাল সরদারের ছেলে। তিন ভাই এক বোনের মধ্যে তিনি বড়। জয় গোসাইরহাট সরকারি
সামসুর রহমান কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র।

নিহত জয়ের বাবা জামাল সরদার বলেন, আমার ছেলে সাহরিয়ার নাজিম জয়ের সঙ্গে বড় ভাই কামাল উদ্দিন সরদারের মেয়ে সানজিদা আক্তার তিশার প্রেমের সম্পর্ক ছিল। পরে আমার ভাই তিশাকে এক বছর আগে গোসাইরহাট বটনা গ্রামের বাচ্চু সরদারের ছেলে জিতু সরদারের (২৬) কাছে বিয়ে দেয়। বিয়ের পর তিশা জয়ের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতো। তাই জিতু সরদার জয়ের উপর ক্ষিপ্ত ছিল। তাই গত ১ আগস্ট দুপুরে জিতু সরদারের ভাই রাকিব সরদার (২২) মোবাইল ফোনে জয়কে বাড়ির ঘাটায় ডেকে নেয়। পরে মোটরসাইকেল করে গোসাইরহাটের গরিবের চর নিয়ে যায়। বিকেল সাড়ে ৩টায় তিশার শশুর বাচ্চু সরদার (৫৫) আমাকে ফোন দিয়ে বলে আপনার ছেলে গরিবের চর বালুরচর এলাকায় মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মারা গেছে, আপনি গোসাইরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসেন।
কিন্তু ছেলের শরীরে কোন ফাটা, কাটা ছেড়া দাগ ছিল না। জিতু সরদার, কামাল উদ্দিন সরদাররা মিলে ময়নাতদন্ত না করে তড়িঘড়ি করে রাত ১০টার দিকে আমার বাড়ির ঘাটায় জানাজা শেষে জয়ের দাফন সম্পূর্ণ করে।

তিনি আরও বলেন, গোসাইরহাট থানায় মামলা করতে গেলে অদৃশ্য কারণে মামলা করতে ব্যর্থ হয়েছি। তাই গত ৬ সেপ্টেম্বর জিতু সরদার, রাকিব সরদার, বাচ্চু সরদার, সানজিদা আক্তার তিশা, মো. কামাল উদ্দিন সরদার, ফেরদৌসী বেগম, মাইনুল সরদারের নাম উল্লেখ করে ৫/৭ জনকে অজ্ঞাত আসামী করে শরীয়তপুর চীফ জুডিশিয়াল মাজিস্ট্রেট আদালতে একটি মামলা করি। এরআগে গত ১১ আগস্ট আমার ছেলের পরিকল্পিত হত্যার মামলা যেন না করতে পারি তাই    আমিসহ পরিবারে চারজনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ৩/৪ জনকে আসামী করে আমার বড় ভাই মো. কামাল উদ্দিন সরদার গোসাইরহাট থানায় একটি ফৌজদারি মামলা করেন। যা মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। এখন আমরা সবাই জামিনে আছি।

তিনি বলেন, আসামীরা আমার ছেলেকে পরিকল্পিতভাবে ও প্ররোচনা করে ডেকে নিয়ে হত্যা করেছে। সুষ্ঠু তদন্ত করে ছেলের হত্যাকারীদের বিচার ফাঁসি দাবি করছি।

গোসাইরহাট থানার ওসি (তদন্ত) মো. ওবায়দুল হক বলেন, আমরা শুনেছি জয় মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মারা গেছেন। এঘটনায় ভুক্তভোগী থানায় কোন অভিযোগ করেননি। লাশ দাফনের পর আমরা জানতে পেরেছি। পরে অভিযোগ করতে বলা হয়েছে। পরে তারা আদালতে মামলা করেছেন। ওই সময় ময়নাতদন্ত হয়নি। তাই আজ ময়নাতদন্তের জন্য লাশ উত্তোলন করা হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

গোসাইরহাট উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুজন দাস গুপ্ত বলেন, ওই সময় ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ দাফন করা হয়েছিল। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা লাশের ময়নাতদন্ত করার জন্য আদালতে আবেদন করেন। আজ ৯ অক্টোবর শরীয়তপুরের মুখ্য বিচারিক হাকিম কবর থেকে লাশ তোলার নির্দেশ দেন। তাই লাশ তুলে ময়নাতদন্তের জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছি।