• রোববার ২১ জুলাই ২০২৪ ||

  • শ্রাবণ ৬ ১৪৩১

  • || ১৩ মুহররম ১৪৪৬

শরীয়তপুর বার্তা
ব্রেকিং:
তিন দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ২১ জুলাই স্পেন যাবেন প্রধানমন্ত্রী আমার বিশ্বাস শিক্ষার্থীরা আদালতে ন্যায়বিচারই পাবে: প্রধানমন্ত্রী কোটা সংস্কার আন্দোলনে প্রাণহানি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত করা হবে মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দেখাতে হবে : প্রধানমন্ত্রী পবিত্র আশুরা মুসলিম উম্মার জন্য তাৎপর্যময় ও শোকের দিন আশুরার মর্মবাণী ধারণ করে সমাজে সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠার আহ্বান মুসলিম সম্প্রদায়ের উচিত গাজায় গণহত্যার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হওয়া নিজেদের রাজাকার বলতে তাদের লজ্জাও করে না : প্রধানমন্ত্রী দুঃখ লাগছে, রোকেয়া হলের ছাত্রীরাও বলে তারা রাজাকার শেখ হাসিনার কারাবন্দি দিবস আজ

বিএনপির দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১০, আইসিইউতে ছাত্রদল নেতা

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ২১ সেপ্টেম্বর ২০২৩  

নগরের কাজীর দেউড়ি এলাকায় বিএনপির দুই পক্ষের নেতা-কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষে অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে অবস্থা গুরুতর হওয়ায় আইসিইউতে ভর্তি করা হয় দক্ষিণ জেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক রবিউল হোসেন রবিকে। বুধবার (২০ সেপ্টেম্বর) বিকেলে নাসিমন ভবনের সামনে মাঠে ও  নুর আহমদ সড়কে দফায় দফায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে রোডমার্চ কর্মসূচির প্রস্তুতি সভা চলছিল।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দীর্ঘ এক দশকের বেশি সময় পর বিএনপির কর্মসূচিতে পটিয়ার সাবেক সাংসদ শাহজাহান জুয়েল দলীয় কার্যালয়ে আসেন। এ সময় পটিয়ার নেতাকর্মীরা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখায়। এর কিছুক্ষণ পর কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য মীর হেলালের সঙ্গে দক্ষিণ জেলা বিএনপির সদস্য সচিব মোস্তাক আহমেদ সভায় যাওয়ার সময় তাকে ধাওয়া দেয় দক্ষিণ জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক এনামুল হক এনামের অনুসারীরা। এ সময় মহানগর বিএনপির সদস্য গাজী সিরাজসহ নগর নেতারা হামলাকারীদের থামানোর চেষ্টা করেন। এ ঘটনার জের ধরে এনাম অনুসারীদের পাল্টা হামলা করে মীর হেলালের অনুসারী নগর ছাত্রদলের সদস্য সচিব শরিফুল ইসলাম তুহিন, আসিফ চৌধুরী লিমন, উত্তর জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মনিরুল আলম জনি, তকিবুল হাসান তকি। এরপর  সভা শেষে বের হওয়ার পথে হামলার শিকার হন এনাম অনুসারী দক্ষিণ জেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক রবিউল হোসেন রবি। তাকে পেছন থেকে ছুরিকাঘাত করা হয়। এ সময় গাজী সিরাজ রবিকে হামলাকারীদের হাত থেকে ছাড়িয়ে দলীয় কার্যালয়ের ভেতর নিয়ে যান। কিছুক্ষণ পরে একটি সিএনজি অটোরিকশায় তাকে হাসপাতাল নিয়ে যাওয়া হয়। বর্তমানে তিনি নগরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে আইসিইউতে ভর্তি আছেন। তবে ছাত্রদলের আহ্বায়কের উপর হামলার ঘটনায় কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য মীর হেলাল ও দক্ষিণ জেলা বিএনপির সদস্য সচিব মোস্তাক আহমেদ খানের ইন্ধনে রয়েছে বলে অভিযোগ নেতাকর্মীদের।

জানা গেছে, দক্ষিণ জেলা বিএনপির সদস্য সচিব মোস্তাক আহমেদ খান দীর্ঘদিন নিস্ক্রিয় দলীয় কর্মকাণ্ডে। এনামুল হক জেলার সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক হলে আরও কোণঠাসা হয়ে যান মোস্তাক। সম্প্রতি মোস্তাক আহমেদ খানের নেতৃত্বে বহিস্কৃত ও নিস্ক্রিয় নেতাকর্মীদের নিয়ে জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক গাজী শাহজাহান জুয়েলের বাসায় বৈঠক করেন। এ বৈঠককে ষড়যন্ত্র উল্লেখ করে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন জেলার নেতাকর্মীরা। এ ঘটনার প্রেক্ষিতে এ সংঘর্ষ হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। মোস্তাক আহমেদ রাজনীতিতে কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য মীর হেলাল উদ্দিনের অনুসারী হিসেবে পরিচিত।

প্রস্তুতি সভা চলাকালে দলীয় কার্যালয়ের সামনে দুই পক্ষের মারামারি প্রসঙ্গে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আবু সুফিয়ান বলেন, কেন দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে তা জানি না। তদন্ত করা হচ্ছে, পরে বিস্তারিত জানাতে পারব।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহেদুল কবির বলেন, এখনো কেউ কোনো অভিযোগ করেনি।