• রোববার ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ১২ ১৪৩০

  • || ১৪ শা'বান ১৪৪৫

শরীয়তপুর বার্তা
ব্রেকিং:
কেউ যেন ভুয়া ক্লিনিক-চিকিৎসকের দ্বারা প্রতারিত না হন: রাষ্ট্রপতি স্থানীয় সরকার বিভাগে বাজেট বরাদ্দ ৬ গুণ বেড়েছে: প্রধানমন্ত্রী স্থানীয় সরকারকে মাটি-মানুষের সঙ্গে নিবিড় সম্পর্ক গড়তে হবে শবে বরাতের মাহাত্ম্যে উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশের কাজে আত্মনিয়োগের আহ্বান সমাজের অসহায়, দরিদ্র মানুষের সহায়তায় এগিয়ে আসতে হবে দেশের মানুষের জন্য ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে হবে বিচারকদের ক্ষমতার অপব্যবহার রোধকল্পে খেয়াল রাখার আহ্বান মিউনিখ সফরে বাংলাদেশের অঙ্গীকার বলিষ্ঠরূপে প্রতিফলিত হয়েছে পবিত্র রমজানে নিত্যপণ্যের সংকট হবে না: প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্টের অভিনন্দন

জুনেই চলবে ট্রেন

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ১৮ মার্চ ২০২৩  

আগামী জুন মাসে আখাউড়া–আগরতলা ডুয়েল গেজ রেলপথে ট্রেন চলাচল শুরু হতে যাচ্ছে। এই রেলপথের স্লিপার, রেললাইনসহ দরকারি সব সরঞ্জাম বসানোর কাজ চলছে। মাটির কাজের অগ্রগতি হয়েছে। এখন ফিনিশিংয়ের কাজ চলছে। এপ্রিল–মে মাসের মধ্যে কাজ শেষ করার টার্গেট নিয়ে পুরোদমে এই প্রকল্পের কাজ চলছে। জুনের মধ্যে আখাউড়া–আগরতলা ও আখাউড়া–লাকসাম ডুয়েল গেজ রেলপথে ট্রেন চলাচল শুরু হবে প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, আখাউড়া–আগরতলা রেললাইন প্রকল্পটি গুরুত্বপূর্ণ। এই রুটে রেল যোগাযোগ চালু হলে ব্যবসা–বাণিজ্য প্রসারিত হবে, উভয় দেশের নাগরিকেরা উপকৃত হবেন। আখাউড়া থেকে লাকসাম হয়ে চট্টগ্রামে রেলপথ রয়েছে। আখাউড়া থেকে ঢাকাও রেলপথ রয়েছে। এখন আখাউড়া–আগরতলা রেলপথ চালু হলে চট্টগ্রাম বন্দর থেকে কন্টেনারবাহী ট্রেন যাবে আগরতলা–ত্রিপুরা। একই সাথে যাত্রীবাহী ট্রেনও চলাচল শুরু হবে। অপরদিকে ঢাকা থেকেও যাত্রীবাহী ট্রেন যাবে। চট্টগ্রাম ও ঢাকার সাথে আগরতলা–ত্রিপুরার ব্যবসা–বাণিজ্যের প্রসার ঘাটবে। এতে করে দুই দেশ উপকৃত হবে।

প্রকল্প পরিচালকের দপ্তর থেকে জানা গেছে, এ পর্যন্ত এই প্রকল্পের সময় চার দফা বাড়ানো হয়। করোনার কারণে দুই দফা কাজ প্রায় বন্ধ ছিল। করোনা শেষ হওয়ার পর রেলপথ নির্মাণের কাজ পুরোদমে শুরু হলে রেলপথের স্লিপার, রেললাইনসহ দরকারি সব সরঞ্জাম আমদানি শুরু হয়। এখন শুষ্ক মৌসুম হওয়ায় পুরোদমে কাজ চলছে বলে জানান প্রকল্প পরিচালক। সেতু নির্মাণের কাজ শেষ হয়ে গেছে। অ্যাপ্রোচিংয়ের কাজ শেষ পর্যায়ে। আগরতলা থেকে আখাউড়া পর্যন্ত রেলপথের দৈর্ঘ্য সাড়ে ১৫ কিলোমিটার। এর মধ্যে ত্রিপুরার অংশে পড়েছে সাড়ে ৫ কিলোমিটার এবং বাংলাদেশ অংশে পড়েছে ১০ কিলোমিটার। ভারতের আগরতলা অংশের সাড়ে ৫ কিলোমিটার রেলপথ নির্মাণের অর্থ দিচ্ছে ভারতীয় রেল এবং বাংলাদেশের অংশের রেলপথ নির্মাণের অর্থ দিচ্ছে ভারত সরকার।

গত বছরের ১১ ডিসেম্বর রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন ‘আখাউড়া–আগরতলা ও আখাউড়া–লাকসাম রেললাইন প্রকল্প’ পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের বলেছিলেন, ২০২৩ সালের জুনে এই রুটে ট্রেন চলাচল করবে। সেই টার্গেট নিয়ে এখন প্রকল্পের কাজ এগিয়ে চলছে বলে প্রকল্প পরিচালকের কার্যালয় থেকে জানা গেছে।