• শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৩১ ১৪৩১

  • || ০৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

শরীয়তপুর বার্তা
ব্রেকিং:
তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায় শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ প্রধানমন্ত্রীকে বদলে যাওয়া জীবনের গল্প শোনালেন সুবিধাভাগীরা

পেঁয়াজ সংরক্ষণে ঘর করে দিচ্ছে সরকার

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ১ জুন ২০২৩  

পেঁয়াজ আবাদে সমৃদ্ধ জেলা রাজবাড়ী। সারাদেশের প্রায় ১৫-১৬ শতাংশ পেঁয়াজ উৎপাদন হয় এ জেলায়। এবং উৎপাদনে দেশের তৃতীয় অবস্থানে আছে রাজবাড়ী। কিন্তু পেঁয়াজ সংরক্ষণের ব্যবস্থা না থাকায় বেশিরভাগ কৃষক ভরা মৌসুমেই তা অল্প দামে বিক্রি করে দেন। অল্পকিছু কৃষক নিজস্ব উপায়ে সংরক্ষণ করলেও থাকে নানা জটিলতা। তাই পেঁয়াজ ও রসুন সংরক্ষণে কৃষক পর্যায়ে বিনামূল্যে ঘর নির্মাণ করে দিচ্ছে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর।

কালুখালী উপজেলায় পেঁয়াজের সবচেয়ে বেশি আবাদ হয়। কালুখালীতে প্রায় ১৮ হাজার কৃষক পেঁয়াজ চাষের সঙ্গে জড়িত। এ বছর উপজেলায় ৮ হাজার ১০ হেক্টর জমিতে পেঁয়াজ আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও আবাদ হয়েছে ৮ হাজার ১৫৮ হেক্টর জমিতে। উৎপাদন হয়েছে ৯৩ হাজার ৮১৭ টন পেঁয়াজ।

jagonews24

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, এ বছর জেলায় ৩৪ হাজার ৬৭৫ হেক্টর জমিতে পেঁয়াজ আবাদের লক্ষ্যমাত্রা থাকলেও আবাদ হয়েছে ৩৪ হাজার ৯১০ হেক্টর জমিতে।

এসব পেঁয়াজ সংরক্ষণে কালুখালী উপজেলায় বিনামূল্যে ২০টি মডেল ঘর নির্মাণ করে দিচ্ছে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর। এর মধ্যে উপজেলার মৃগী ইউনিয়নে চারটি, বোয়ালিয়ায় চারটি, রতনদিয়ায় তিনটি, মাজবাড়ীতে তিনটি, সাওরাইলে তিনটি ও মদাপুরে দুটি ঘর নির্মাণ করা হচ্ছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন কাজ করছেন মোল্লা এন্টারপ্রাইজ নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। প্রকল্পটি চলতি বছরের জানুয়ারিতে শুরু হয়েছে, শেষ হবে জুন মাসে। সম্পূর্ণ কাজ শেষ হলে আনুষ্ঠানিকভাবে কৃষকদের কাছে ঘরগুলো হস্তান্তর করা হবে।

সরেজমিনে দেখা যায়, উন্মুক্তস্থানে কৃষকের বাড়ির আঙিনায় কংক্রিটের পিলারের ওপর বাঁশ-কাঠ দিয়ে তৈরি করা হচ্ছে দৃষ্টিনন্দন ঘর। রঙিন টিন দিয়ে দেওয়া হচ্ছে ছাউনি। এছাড়া ঘরে দেওয়া হয়েছে তিন স্তরের মাচালি। সার্বক্ষণিক আলো-বাতাস প্রবেশের জন্য ঘরের চারপাশের বেড়া ও দরজা দেওয়া হয়েছে বাঁশ দিয়ে। প্রতিটি ঘরের খরচ ধরা হয়েছে সাড়ে চার লাখ টাকা। প্রতিটি ঘরে পাঁচজন কৃষক যৌথভাবে শুধু বিদ্যুৎ বিল দিয়েই ৩০০ মণ পেঁয়াজ ৬-৯ মাস পর্যন্ত সংরক্ষণ করতে পারবেন।

jagonews24

আরিফুল ইসলাম ও ফারুকসহ কয়েকজন কৃষক জানান, জেলার কালুখালী, পাংশা ও বালিয়াকান্দিতে প্রচুর পেঁয়াজের আবাদ হয়। কিন্তু যথাযথভাবে সংরক্ষণের অভাবে সিজনের শুরুতেই অল্প দামে পেঁয়াজ বেচে লোকসানের মুখে পড়েন। এখন সরকার যে ঘর দিচ্ছে, তা মাত্র কয়েকজন কৃষক পেয়েছেন। কৃষকদের লাভবান করতে প্রতিটি এলাকায় এরকম ঘর করা উচিত। পেঁয়াজ সংরক্ষণ করতে পারলে তারা লাভবান হবেন।

পেঁয়াজ চাষি পরশ আলী খান বলেন, আগে নিজস্ব উপায়ে পেঁয়াজ সংরক্ষণ করলেও পচে যেত। ফলে কম দামে বিক্রি করে দিতাম। সরকারিভাবে পেঁয়াজ রাখার একটি ঘর আমার বাড়িতে করা হয়েছে। বলা হয়েছে এ ঘরে পাঁচজন কৃষক মিলে ৩০০ মণ পেঁয়াজ রাখতে পারবো। কিন্তু আমি নিজেই এবার আট বিঘা জমিতে পেঁয়াজের আবাদ করে প্রায় ৩০০-৪০০ মণ পেঁয়াজ পেয়েছি। তাহলে অন্যের পেঁয়াজ কোথায় রাখবো। তাই এ রকম ঘর প্রতিটি কৃষকের বাড়িতে সরকারের করে দেওয়া উচিত।

আরেক চাষি রফিক বলেন, গরিব মানুষ, পেঁয়াজ মজুত রাখার মতো অবস্থা নাই। ফলে সংরক্ষণের অভাবে সিজনের সময় কমদামে বিক্রি করে দিয়েছি। কিন্তু যারা ঘরে মাচা বা চাঙে সংরক্ষণ করে রেখেছেন, তারা এখন বেশি দামে বিক্রি করছেন। সরকার থেকে পেঁয়াজ রাখার জন্য ঘর দিচ্ছে, কিন্তু আমি সেটা জানি না। পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধা পেলে আমিও পেঁয়াজ সংরক্ষণ করে বেশি দামে বিক্রি করে লাভবান হতে পারতাম।

পেঁয়াজ ব্যবসায়ী আসাদুজ্জামান বলেন, কৃষকরা মাঠ থেকে পেঁয়াজ তুলে সংরক্ষণ করতে না পেরে ৭০০-৮০০ টাকা মণে বিক্রি করে দেয়। যারা ঘরে রাখে তারা পরে বেশি দামে বিক্রি করে। আমরা নিয়মিত পেঁয়াজ কিনি আবার বিক্রি করি। আমাদের মজুত করার জায়গা থাকলে আমরা আরও লাভবান হতাম।

রাজবাড়ী জেলা কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের মাঠ কর্মকর্তা মো. রাজিব খান বলেন, প্রাথমিক পর্যায়ে কালুখালীতে পেঁয়াজ সংরক্ষণের জন্য বিভিন্ন ইউনিয়নে বিনামূল্যে ২০টি ঘর নির্মাণ হচ্ছে। প্রতিটি ঘরে পাঁচজন কৃষক যৌথভাবে ৩০০ মণ পেঁয়াজ রাখতে পারবেন। এ ঘরে ৬ থেকে ৯ মাস পর্যন্ত পেঁয়াজ রাখা যাবে। এর ফলে কৃষকরা লাভবান হবেন। সারা বছরের পেঁয়াজের ঘাটতিও পূরণ হবে। পর্যায়ক্রমে অন্যান্য উপজেলায়ও এমন ঘর নির্মাণ করা হবে।

jagonews24

কালুখালী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা পূর্ণিমা হালদার বলেন, কালুখালী পেঁয়াজ আবাদের উপযুক্ত এলাকা। এবছর লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি জমিতে পেঁয়াজের আবাদ হয়েছে। বিগত দিনগুলোতে কৃষকরা পেঁয়াজ উৎপাদনের পর নিজস্ব উপায়ে সংরক্ষণ করেছে। কিন্তু এবার পাইলট প্রকল্পে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে ২০টি ঘর নির্মাণ করছে। এ ঘরে পেঁয়াজ রাখার যে সুবিধা কৃষকরা যদি সেটি পায়, তাহলে পরবর্তীতে সংখ্যা আরও বাড়ানো হবে।

তিনি আরও বলেন, এ পদ্ধতিতে বেশিদিন পেঁয়াজ সংরক্ষণ করা গেলে হয়তো বড় বড় কৃষকরা নিজস্ব খরচে এ ধরনের ঘর নির্মাণ করবেন। এতে পেঁয়াজের চাহিদা পূরণের পাশাপাশি তারা আর্থিকভাবে লাভবান হবেন। সঠিক দামও পাবেন।