• মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪ ||

  • বৈশাখ ৩ ১৪৩১

  • || ০৬ শাওয়াল ১৪৪৫

শরীয়তপুর বার্তা
ব্রেকিং:
নতুন বছর মুক্তিযুদ্ধবিরোধী অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে প্রেরণা জোগাবে : প্রধানমন্ত্রী আ.লীগ ক্ষমতায় আসে জনগণকে দিতে, আর বিএনপি আসে নিতে: প্রধানমন্ত্রী দেশবাসীকে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা প্রধানমন্ত্রীর ঈদুল ফিতর উপলক্ষে দেশবাসীকে শুভেচ্ছা রাষ্ট্রপতির দেশবাসী ও মুসলিম উম্মাহকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী কিশোর অপরাধীদের মোকাবেলায় বিশেষ নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী ব্রাজিলকে সরাসরি তৈরি পোশাক নেওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর জুলাইয়ে ব্রাজিল সফর করতে পারেন প্রধানমন্ত্রী আদর্শ নাগরিক গড়তে প্রশংসনীয় কাজ করেছে স্কাউটস: প্রধানমন্ত্রী স্মার্ট বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় স্কাউট আন্দোলনকে বেগবান করার আহ্বান

১৪ বছর পূর্ণ করলো আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ২৫ মার্চ ২০২৪  

প্রতিষ্ঠার ১৪ বছর পূর্ণ করলো আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। যুগ পেরোনো সময়ে ট্রাইব্যুনাল থেকে রায় এসেছে ৫৫টি। শীর্ষ রাজাকারদের রায় এলেও দল হিসেবে জামায়াতের বিচারে অপূর্ণতা রয়েই গেছে বলে মন্তব্য তদন্ত সংস্থার সমন্বয়কের। তবে মানবতাবিরোধী বিচারে সফল প্রসিকিউশন টিম বলে দাবি তাদের।

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানিরা নিরীহ বাঙালির ওপর বর্বর গণহত্যা, ধর্ষণ, নিপীড়নসহ মানবতাবিরোধী নৃশংসতা চালায়। এসব অপরাধে তাদের সহযোগিতা করে এবং নৃশংসতায় সরাসরি অংশ নেয় এ দেশীয় কিছু দোসর। এর মধ্যে ছিল রাজাকার, আলবদর ও আলশামস বাহিনী।

এরপর নানা চড়াই উৎরাই পার হয়ে স্বাধীনতার ৩৯ বছর পর মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল গঠন হয়। আনুষ্ঠানিক যাত্রা হয় ২০১০ সালের ২৫ মার্চ।

পরে ২০১২ সালের ২২ মার্চ ট্রাইব্যুনাল-২ নামে আরেকটি ট্রাইব্যুনাল গঠন করা হয়। ২০১৫ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর দুটিকে একীভূত করে আবার একটি ট্রাইব্যুনাল করা হয়। এখন একটি ট্রাইব্যুনালে বিচারকাজ চলমান।

মানবতাবিরোধী অপরাধে ট্রাইব্যুনালে গত ১৪ বছরে ৫৫টি মামলার রায় হয়েছে। আর চলমান মামলার সংখ্যা ৩০টি। তদন্ত শেষ করে ট্রাইব্যুনালে দাখিল করা প্রতিবেদন ৩টি। আর আসামির সংখ্যা ১৬৫ জন। রায়ে মোট আসামি ১৫৫ জন। আপিল বিভাগে বিচারাধীন ৫৪ জনের মামলা। পলাতক আসামির সংখ্যা ৩৭ জন। মোট মামলা ১২১ ও আসামি ৩৪০ জন।

এ পর্যন্ত ছয়জনের ফাঁসিসহ সাত আসামির দণ্ড কার্যকর হয়েছে।

ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর হায়দার আলী বলেন, শীর্ষ রাজাকারদের বিচার সম্পন্ন হয়েছে বর্তমানে আরও বেশ কয়েকটি মামলায় বিচার কাজ চলছে। আরও ১টি ট্রাইব্যুনালের প্রয়োজনীয়তার কথা বলেন এই প্রসিকিউটর।

তদন্ত সংস্থার সমন্বয়ক এম সানাউল হক বলেন, ট্রাইব্যুনালে মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের সাফল্য এরইমধ্যে আন্তর্জাতিকভাবে অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। তবে চূড়ান্ত বিচারে দণ্ডিতদের আপিলের নিষ্পত্তি না হওয়া এবং দেশে-বিদেশে পলাতক আসামিদের ধরতে না পারায় ভুক্তভোগীদের মধ্যে হতাশা কাজ করছে।

দল হিসেবে জামায়াতের তদন্ত শেষ করে প্রতিবেদন জমা দিলেও আলোর মুখ দেখেনি এখনও। হতাশা রয়েছে এই বিষয়ে।

ট্রাইব্যুনালের রায়ের পর সব আইনি প্রক্রিয়া শেষে শীর্ষ পর্যায়ের সাত আসামির দণ্ড কার্যকর হয়েছে। এদের মধ্যে ছয়জনের ফাঁসি কার্যকর হয়েছে এবং আমৃত্যু কারাদণ্ড ভোগ করেছেন জামায়াত নেতা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী।

মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়া ছয় আসামি হলেন জামায়াতে ইসলামীর শীর্ষস্থানীয় নেতা মতিউর রহমান নিজামী, আলী আহসান মোহাম্মাদ মুজাহিদ, আবদুল কাদের মোল্লা, মুহাম্মদ কামারুজ্জামান ও মীর কাসেম আলী এবং বিএনপি নেতা সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী।