• রোববার ১৬ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ২ ১৪৩১

  • || ০৮ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

শরীয়তপুর বার্তা
ব্রেকিং:
তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায় শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ প্রধানমন্ত্রীকে বদলে যাওয়া জীবনের গল্প শোনালেন সুবিধাভাগীরা

হাইকোর্ট বেঞ্চে ‘বকশিশ দেওয়া-নেওয়া দুর্নীতি বলে গণ্য হবে’

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ১১ মে ২০২৩  

মামলাসংক্রান্ত বিষয়ে আদালত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বকশিশের নামে কোনো ধরনের সুবিধা নেওয়া ও দেওয়া নিষিদ্ধ করে হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ থেকে বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে।

বুধবার বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি বিশ্বজিৎ দেবনাথের হাইকোর্ট বেঞ্চের এজলাস কক্ষের বাইরে ব্যতিক্রমী এ বিজ্ঞপ্তি টানিয়ে দেওয়া হয়।

বিচারপতিদ্বয়ের নির্দেশে ওই বেঞ্চের বেঞ্চ কর্মকর্তা মো. সেফাতউল্লাহ খান স্বাক্ষরিত জারি করা ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ‘কার্যতালিকায় মামলা ওঠার আগে বা পরে, মামলার রায়, জামিন আদেশ বা অন্য যে কোনো আদেশ হওয়ার আগে বা পরে বা অন্য যে কোনো সময় এই কোর্টের বেঞ্চ অফিসার, সহকারী বেঞ্চ অফিসার, বিচারপতির ব্যক্তিগত কর্মকর্তা, কোর্টের জমাদার, কোর্ট বা চেম্বারের এমএলএসএস, বিচারপতির ড্রাইভার এবং গানম্যানসহ অত্র কোর্টের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট যে কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারী বকশিশ বা টিপস নেওয়ার নামে কোনো প্রকার অর্থ, উপহারসামগ্রী, গাড়িসেবা বা অন্য কোনো নামে কোনো ধরনের সুবিধা গ্রহণ বা নেওয়া দুর্নীতি বলে গণ্য হবে। এই কোর্টের কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারীকে এ ধরনের দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত পাওয়া গেলে আইন ও বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আইনজীবী, আইনজীবী সহকারী এবং এই কোর্টের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবাইকে এ ধরনের কার্যকলাপ থেকে বিরত থাকার জন্য মাননীয় বিচারপতি মহোদয়গণ নির্দেশনা দিয়েছেন।’

উল্লেখ্য, উচ্চ আদালতে এক ধরনের রীতিতে পরিণত হয়েছে এই টিপস বা বকশিশ নেওয়া ও দেওয়া। মামলায় জেতার সঙ্গে সঙ্গে আদালত কক্ষের ভেতরে ও বাইরে ওঁৎপেতে থাকা কিছু কর্মচারী ছুটে যান সংশ্লিষ্ট আইনজীবীর কাছে। তারা বকশিশ দাবি করে বসেন। বিব্রতকর পরিস্থিতি এড়াতে এবং অনেক সময় চক্ষুলজ্জার ভয়ে আইনজীবীরাও বকশিশ দিয়ে দেন। এর বাইরে মামলায় জেতার পর অনেক সময় কর্মকর্তাদেরও খুশি করতে হয়। আর এসব বিষয় লক্ষ্য করেই এ ধরনের বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন আইনজীবীদের।