• শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৩১ ১৪৩১

  • || ০৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

শরীয়তপুর বার্তা
ব্রেকিং:
তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায় শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ প্রধানমন্ত্রীকে বদলে যাওয়া জীবনের গল্প শোনালেন সুবিধাভাগীরা

গর্ভবতী স্ত্রীর চিকিৎসা খরচ মেটাতে ডাকাতি করেন স্বামী

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩  

মানিকগঞ্জ পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) তদন্তে দেড় বছর আগের ক্লুলেস ডাকাতি মামলার রহস্যের জট খুলেছে। তারা জানিয়েছে, গর্ভবতী স্ত্রীর চিকিৎসা ব্যয় মেটাতে এ ডাকাতি করেছিলেন স্বামী জাহিদ মোল্লা।
সোমবার বিষয়টি জানিয়েছেন পিবিআইয়ের মানিকগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এম কে এইচ জাহাঙ্গীর হোসেন।

পিবিআই মানিকগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জানান, অভিযুক্ত জাহিদ ও বাবু করিরাজকে রোববার গ্রেফতার করে সোমবার আদালতের মাধ্যমে তাদের কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। তারা আদালতে ১৬৪ ধারায় দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন।

পিবিআই সূত্র জানায়, ২০২২ সালের ৬ মার্চ রাতে ডাকাতদল সিংগাইর উপজেলার চাকুলিয়া গ্রামে আরিফ মোল্লার বাড়িতে ঘরের দরজা ভেঙে ডাকাতি করে। এ সময় তারা ৮ আনা ওজনের স্বর্ণের চেইন, কানে থাকা ৮ আনা ওজনের দু’জোড়া স্বর্ণের দুল, দুটি মোবাইল ফোন নিয়ে যায়।

এ ঘটনায় তখন সিংগাইর থানায় ডাকাতি মামলা করেন ভুক্তভোগী গৃহকর্তা মো. আরিফ মোল্লা। তবে মামলার রহস্য উদঘাটন করতে পারেনি থানা পুলিশ। চলতি বছরের মার্চে মামলাটি পুলিশ হেডকোয়ার্টারের নির্দেশে পিবিআই মানিকগঞ্জ তদন্তের দায়িত্ব পায়।

মামলাটি তদন্ত করেন এসআই (নি.) হিরণ চন্দ্র মজুমদার। তদন্ত শেষে অভিযুক্তদের গ্রেফতার করেন তিনি। এরপর বেরিয়ে আসে ক্লুলেস ডাকাতি মামলার আসল কাহিনী। জানতে পারেন গর্ভবতী স্ত্রীর চিকিৎসা খরচ মেটাতে ডাকাতির পরিকল্পনা করেন অভিযুক্ত জাহিদ মোল্লা। ডাকাতি করতে সঙ্গে নেন ফরিদপুরের ডাকাত বাবু কবিরাজকে (৩৫)। প্রথমে মূল পরিকল্পনাকারী জাহিদকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ফরিদপুর থেকে বাবু কবিরাজকেও গ্রেফতার করা হয়।