• শনিবার ০২ মার্চ ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ১৮ ১৪৩০

  • || ২০ শা'বান ১৪৪৫

শরীয়তপুর বার্তা
ব্রেকিং:
বেইলি রোডে অগ্নিকান্ড কবলিত ভবনে ফায়ার এক্সিট না থাকায় হতাশ নতুন নতুন অপরাধ দমনে পুলিশকে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ পণ্যমূল্য সহনীয় রাখতে সরকারের পাশাপাশি জনগণেরও নজরদারি চাই রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম সহনীয় পর্যায়ে থাকবে পুলিশকে জনগণের বন্ধু হয়ে নিঃস্বার্থ সেবা দেয়ার নির্দেশ রাষ্ট্রপতি বিশ্বের সম্ভাব্য সকল স্থানে রপ্তানি বাজার ছড়িয়ে দেয়ার আহ্বান বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা জরুরি গভীর সমুদ্র থেকে গ্যাস উত্তোলনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার পুলিশ জনগণের বন্ধু, সে কথা মাথায় রেখেই দায়িত্ব পালন করতে হবে অপরাধের ধরন বদলাচ্ছে, পুলিশকেও সেভাবে আধুনিক হতে হবে

৯ম শ্রেণির ছাত্রীকে নিয়ে উধাও প্রধান শিক্ষক রতন

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ২৯ নভেম্বর ২০২৩  

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে ৯ম শ্রেণির এক ছাত্রীকে নিয়ে পালিয়েছেন একই বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক। এ ঘটনায় কালিয়াকৈর থানায় অভিযোগ করেছেন ওই ছাত্রীর বাবা। তবে মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত ছাত্রীকে ও অভিযুক্ত শিক্ষকের কোনো হদিস মেলেনি। এ নিয়ে এলাকায় চলছে নানা সমালোচনা।

অভিযুক্ত শিক্ষক রতন আলী ঢাকার ধামরাই থানার জামিরাবাড়ি এলাকার বেলায়েত হোসেনের ছেলে। তিনি সাটুরিয়া শোলহাটি উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক।

জানা গেছে, কালিয়াকৈর উপজেলার সাটুরিয়াচালা এলাকার সাটুরিয়া শোলহাটি উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক রতন আলী গত ছয় মাস আগে ওই বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। তিনি বিদ্যালয়ের গণিত বিষয়ের শিক্ষক। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অবসরে গেলে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হন রতন আলী। গত বৃহস্পতিবার (২৩ নভেম্বর) তিনি তার চিকিৎসার কথা বলে ৩ দিনে ছুটিতে যান।

রোববার (২৬ নভেম্বর) সকালে প্রাইভেট পড়ার কথা বলে ওই বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণির এক ছাত্রীও বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। বিদ্যালয় সংশ্লিষ্ট ও পরিবারের লোকজন অনেক খোঁজাখুজি করেও তাদের কোনো হদিস পায়নি। ছাত্রীকে নিয়ে উধাও হওয়ার ঘটনায় ওইদিনই তার বাবা বাদী হয়ে কালিয়াকৈর থানায় একটি অভিযোগ করেন।

ওই ছাত্রীর বলেন, ওই শিক্ষকের স্ত্রী সন্তান থাকার পরও আমার অপ্রাপ্তবয়স্ক মেয়েকে ফুসলিয়ে নিয়ে গেছে। সুস্থ অবস্থায় আমার মেয়েকে আমি ফেরত চাই। শিক্ষক নামের ওই অমানুষের কঠিন বিচার চাই।

ওই বিদ্যালয়ের দাতা সদস্য শামীম আল রাজী বলেন, আমার মনে হচ্ছে এটা একটি পরিকল্পিত ঘটনা। এটা শোনার পর ওই শিক্ষককে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। তবে ঘটনাটি পুরোপুরি প্রমাণিত হলে সবোর্চ্চ শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

কালিয়াকৈর থানাধীন মৌচাক ফাঁড়ি এসআই শাহ আলম জানান, এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ হয়েছে। ওই ছাত্রীকে উদ্ধারসহ শিক্ষককে আটকের চেষ্টা চলছে।

ইউএনও তাজওয়ার আকরাম সাকাপি ইবনে সাজ্জাদ বলেন, বিষয়টি জানার পর ওই শিক্ষকের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করছি। কিন্তু ওনাকে পাচ্ছি না। তবে এ বিষয়ে আমাদের কাছে অভিযোগ দিলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।