• মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল ২০২৪ ||

  • বৈশাখ ৩ ১৪৩১

  • || ০৬ শাওয়াল ১৪৪৫

শরীয়তপুর বার্তা
ব্রেকিং:
নতুন বছর মুক্তিযুদ্ধবিরোধী অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে প্রেরণা জোগাবে : প্রধানমন্ত্রী আ.লীগ ক্ষমতায় আসে জনগণকে দিতে, আর বিএনপি আসে নিতে: প্রধানমন্ত্রী দেশবাসীকে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা প্রধানমন্ত্রীর ঈদুল ফিতর উপলক্ষে দেশবাসীকে শুভেচ্ছা রাষ্ট্রপতির দেশবাসী ও মুসলিম উম্মাহকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী কিশোর অপরাধীদের মোকাবেলায় বিশেষ নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী ব্রাজিলকে সরাসরি তৈরি পোশাক নেওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর জুলাইয়ে ব্রাজিল সফর করতে পারেন প্রধানমন্ত্রী আদর্শ নাগরিক গড়তে প্রশংসনীয় কাজ করেছে স্কাউটস: প্রধানমন্ত্রী স্মার্ট বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় স্কাউট আন্দোলনকে বেগবান করার আহ্বান

আগামী মাসেই থার্ড টার্মিনাল বুঝে নেবে সিভিল এভিয়েশন!

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ৩১ মার্চ ২০২৪  

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের থার্ড টার্মিনাল এপ্রিলের শুরুতেই ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে বুঝে নেবে সিভিল এভিয়েশন। এরপরই শুরু হবে পুরানো টার্মিনাল থেকে অপারেশন স্থানান্তরের কাজ। এ বিষয়ে জুলাই মাসে জাইকার সঙ্গে চুক্তি হবে। এদিকে, নতুন টার্মিনালে যাত্রীবান্ধব সেবা দেয়ার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের।

নকশা অনুযায়ী এ থার্ড টার্মিনালের অবকাঠামো নির্মাণ কাজ প্রায় শতভাগ শেষ। চুক্তি অনুয়ায়ী জাপানের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মিতসুবিশি করপোরেশনের কাছ থেকে নির্ধারিত ৬ এপ্রিলেই তৃতীয় টার্মিনাল বুঝে নেবে সিভিল এভিয়েশন।

এরপরই পুরানো টার্মিনাল-১ ও ২ থেকে সব ধরনের অপারেশন্স কার্যক্রম স্থানান্তর করবে সিভিল এভিয়েশন। সরকারের নীতিগত সিদ্ধান্তে তৃতীয় টার্মিনাল পরিচালনায় থাকবে জাইকা। এজন্য নতুন করে জুলাই মাসে প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে আরেকটি চুক্তি করা হবে।

বাংলাদেশ সিভিল এভিয়েশনের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল এম. মফিদুর রহমান বলেন, পুরাতন টার্মিনালের অপারেশন্স কার্যক্রম তৃতীয় টার্মিনালে স্থানান্তর করা হবে। এ সংক্রান্ত রিপোর্ট হাতে পেলেই জাইকার সঙ্গে আরেকটি চুক্তি করা হবে।

নতুন কোন টার্মিনালের কার্যক্রম শুরুর জন্য অবকাঠামো নির্মাণের পরই গুরুত্বপূর্ণ অপারেশন্স। ইমিগ্রেশন, এয়ার ট্রাফিক, রানওয়ে, নিরাপত্তা সিস্টেম, বিমান রক্ষণাবেক্ষণ ও আবহাওয়াসহ বিভিন্ন পরিষেবা রয়েছে। বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, যাত্রীবান্ধব সেবা দিতে থাকতে হবে দক্ষ ব্যবস্থাপনা।

এভিয়েশন বিশেষজ্ঞ এটিএম নজরুল ইসলাম বলেন, একটি টার্মিনালের কার্যক্রম স্থানান্তরকালে কিছু চ্যালেজ্ঞ থাকবে -- এটা স্বাভাবিক। এসব চ্যালেজ্ঞ মোকাবিলায় সংশিষ্ট কর্তৃপক্ষকে দক্ষতার সঙ্গে কাজ করতে হবে।

শাহজালাল বিমানবন্দরে বর্তমানে অপারেশনে থাকা দুটি টার্মিনালের চেয়ে দ্বিগুণেরও বেশি বিস্তৃত তৃতীয় টার্মিনাল। এটি পরিচালনায় প্রায় ৬ হাজার জনবল প্রয়োজন পড়বে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।