• শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ১০ ১৪৩০

  • || ১২ শা'বান ১৪৪৫

শরীয়তপুর বার্তা
ব্রেকিং:
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্টের অভিনন্দন প্রতিবেশীদের সঙ্গে সুসম্পর্ক রেখেই সামুদ্রিক সম্পদ আহরণের আহ্বান সমুদ্রসীমার সম্পদ আহরণ করে কাজে লাগানোর তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর ২১ বছর সমুদ্রসীমার অধিকার নিয়ে কেউ কথা বলেনি: শেখ হাসিনা হঠাৎ টাকার মালিক হওয়ারা মনে করে ইংরেজিতে কথা বললেই স্মার্টনেস ভাষা আন্দোলন দমাতে বঙ্গবন্ধুকে কারান্তরীণ রাখা হয় : সজীব ওয়াজেদ ভাষা আন্দোলনের পথ ধরেই বাংলাদেশের মানুষ স্বাধিকার পেয়েছে অশিক্ষার অন্ধকারে কেউ থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী একুশ মাথা নত না করতে শেখায়: প্রধানমন্ত্রী একুশে পদক তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী

প্রয়োজনে আবারও কাফন পরে রাজপথে নামব : ডিপজল

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩  

চার বছর পর বড় পর্দায় প্রত্যাবর্তন করেই ঝড় তুলেছেন বলিউড বাদশা শাহরুখ খান। ইতোমধ্যে হাজার কোটির ব্যবসা ছাড়িয়েছে ‘পাঠান’। আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান অ্যাকশন কাট এন্টারটেইনমেন্ট চেয়েছিল ছবিটি সাফটা চুক্তির আওতায় এনে বাংলাদেশে মুক্তি দিতে। শুরু থেকেই এর পক্ষ-বিপক্ষে মত দেন চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরা।

অভিনেতা মনোয়ার হোসেন ডিপজল প্রথম থেকেই হিন্দি ছবি আমদানির বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। এবার দিলেন কড়া হুঁশিয়ারি। শনিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির পারিবারিক মিলনমেলায় গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন ডিপজল।

তার কথায়, ‘ভাষার মাসে কেন হিন্দি সিনেমা আসবে? আমাদের নিজেদেরই সমাধানের চেষ্টা করতে হবে। গেল ঈদের সিনেমা দিয়ে তো প্রেক্ষাগৃহে দর্শক ফিরেছিল। দর্শকদের জন্য ভালো গল্প উপহার দিতে হবে, তাহলেই তারা হলমুখী হবেন। হিন্দি সিনেমা কোনো সমাধান নয়। ভাষার মাসে হিন্দি সিনেমা আসার প্রশ্নই আসে না। প্রয়োজনে আবারও কাফনের কাপড় পরে রাজপথে নামব।’

এদিন তিনি চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক নিপুণ আক্তারের ১০ শতাংশ লভ্যাংশ দাবিরও বিরোধিতা করেন। ডিপজল বলেন, ‘হিন্দি সিনেমার কাছে শিল্পী সমিতির কমিশন দাবি বেআইনি। এটা মুনাফিকের কাজ। পারলে কিছু করে দেখাক। তারা কেন হিন্দি সিনেমার কাছে লভ্যাংশ দাবি করবে? তারা যদি শিল্পীদের কল্যাণে কাজ করতে চায় অন্য ভাবে করুক। কমিশন নিয়ে কেন করবে?’

সাম্প্রতিক সংকট কাটিয়ে উঠতে সবাইকে সম্মিলিতভাবে কাজ করার আহ্বান জানান ডিপজল। তার ভাষ্য, ‘আগে যখন চলচ্চিত্রে অস্থিরতা ছিলো, তখন তো আমরাই উত্তরণ করেছিলাম। সেভাবেই করতে হবে। হিন্দি সিনেমা সমাধান নয়। এ ধরনের চিন্তা না আনাই মঙ্গল। আমি বিশ্বাস করি, আমাদের সিনেমা নতুন করে আবারও ঘুরে দাঁড়াবে। বাঙালি হিন্দি নয়, বাংলা সিনেমা দেখতে চায়।’

প্রসঙ্গত, এর আগে ২০১৫ সালেও হিন্দি সিনেমা আমদানি ইস্যুতে প্রতিবাদের ঝড় উঠেছিল ঢালিউডে। সেবার বাংলাদেশ চলচ্চিত্র ঐক্যজোটের ব্যানারে কাফনের কাপড় পরে রাজপথে নেমে মিছিল করেছিলেন অভিনেতা-অভিনেত্রী, পরিচালক ও কলাকুশলীরা।