• বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ১৬ ১৪৩০

  • || ১৮ শা'বান ১৪৪৫

শরীয়তপুর বার্তা
ব্রেকিং:
পণ্যমূল্য সহনীয় রাখতে সরকারের পাশাপাশি জনগণেরও নজরদারি চাই রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম সহনীয় পর্যায়ে থাকবে পুলিশকে জনগণের বন্ধু হয়ে নিঃস্বার্থ সেবা দেয়ার নির্দেশ রাষ্ট্রপতি বিশ্বের সম্ভাব্য সকল স্থানে রপ্তানি বাজার ছড়িয়ে দেয়ার আহ্বান বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা জরুরি গভীর সমুদ্র থেকে গ্যাস উত্তোলনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার পুলিশ জনগণের বন্ধু, সে কথা মাথায় রেখেই দায়িত্ব পালন করতে হবে অপরাধের ধরন বদলাচ্ছে, পুলিশকেও সেভাবে আধুনিক হতে হবে পুলিশ সপ্তাহ শুরু, উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী আইনশৃঙ্খলা সমুন্নত রাখতে পুলিশ নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে

অস্ট্রেলিয়ায় মাছ ‘বৃষ্টি’

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩  

অস্ট্রেলিয়ার একটি প্রত্যন্ত অঞ্চলের বাসিন্দারা রোববার একটি ঘটনায় হতবাক হয়ে যান। ওই দিন এলাকাটিতে মাছবৃষ্টি হয়েছিল। তাদের কাছে মনে হচ্ছিল, যেন স্বর্গ থেকে মাছ পড়ছে। এই মাছগুলো কিন্তু জীবন্তই ছিল।
উত্তর টেরিটরির তানামি মরুভূমির উত্তর প্রান্তে অবস্থিত লাজামানুর বাসিন্দারা জানিয়েছেন, ভারী বৃষ্টিপাতের সময় এ ঘটনাটি ঘটেছে।

সেন্ট্রাল ডেজার্ট কাউন্সিলর অ্যান্ড্রু জনসন জাপানাঙ্কা এবিসি নিউজকে বলেছেন, ‘আমাদের এলাকার দিকে একটি বড় ঝড় অগ্রসর হতে দেখেছি এবং আমরা ভেবেছিলাম এটি শুধুই বৃষ্টি। কিন্তু বৃষ্টি শুরু হলে আমরা মাছও পড়তে দেখেছি।’

তিনি জানান, মাছগুলো পড়ে যাওয়ার পরেও বেঁচে ছিল এবং এগুলো প্রায় ‘দুই আঙ্গুলের সমান’ ছিল।

জাপানাঙ্কা বলেন, ‘কেউ কেউ এখনও পানির গর্তের মধ্যে মাছ খুঁজে পাচ্ছেন। শিশুরা সেগুলো তুলে নিয়ে বোতল বা জারে রাখছে।’

অবিশ্বাস্য এই ঘটনা অবশ্য লাজামানুতে এবারই প্রথম নয়। এর আগে ১৯৭৪ সালেও এ ধরনের ঘটনা ঘটেছিল।

আশির দশকে মাছবৃষ্টির কথা স্মরণ করে পেনি ম্যাকডোনাল্ড নামের এক বাসিন্দা বলেন,‘আমি সকালে উঠেছিলাম, আমি ওই সময় স্কুলে কাজ করছিলাম এবং আমার বাড়ির বাইরের নোংরা রাস্তাগুলো মাছে ঢাকা ছিল।’

কুইন্সল্যান্ড মিউজিয়ামের ইচথিওলজিস্ট জেফ জনসন সপ্তাহান্তে প্রথমটিকে স্প্যাংল্ড পার্চ বা স্প্যাংল্ড গ্রন্টার হিসাবে চিহ্নিত করেছেন, যা অস্ট্রেলিয়ার একটি সাধারণ স্বাদু পানির মাছ।

নর্দার্ন টেরিটরির মিউজিয়াম অ্যান্ড আর্ট গ্যালারির মাছের কিউরেটর মাইকেল হ্যামার এবিসি নিউজকে বলেছেন, ঘটনাটি ‌অস্বাভাবিক নয়।

হ্যামার স্থানীয় জলের গর্তগুলিতে বন্যার জন্য মাছ ছিটানোকে দায়ী করেছেন, যদিও তিনি টর্নেডোর মতো শক্তিশালী ঝড়ের দ্বারা সমুদ্রের জীবনকে তুলে নেয়ার এবং অন্যান্য জায়গায় পড়ে যাওয়ার সম্ভাবনার কথাও উল্লেখ করেছেন।

`তাদেরকে বিশেষভাবে জলের গর্ত থেকে বের করে এবং তারপরে বাতাসে তোলার জন্য কোন শক্তির প্রয়োজন হবে, এটি বেশ আকর্ষণীয় হবে।‘

হ্যামার লাজামানু স্থানীয়দের ঘটনাটি নিজেরাই অধ্যয়ন করতে উত্সাহিত করেছিলেন।

`আমি মনে করি পরের বার বৃষ্টি হলে আপনাকে জাল দিয়ে বাইরে থাকতে হবে, মাছ পড়ার সাথে সাথে ধরতে হবে, এবং সঠিকভাবে তা নথিভুক্ত করতে হবে,‘ তিনি বলেছিলেন।

`কিছু নাগরিক বিজ্ঞান চালু করুন এবং একটি ছবি তৈরি করা শুরু করুন।‘

এদিকে, জাপানাংকা মাছের বৃষ্টির ঝড়কে "আমরা এখন পর্যন্ত দেখা সবচেয়ে আশ্চর্যজনক জিনিস হিসাবে বর্ণনা করেছেন।

`আমি মনে করি এটি প্রভুর কাছ থেকে একটি আশীর্বাদ,‘ তিনি চিন্তা করেছিলেন।