• বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ১৬ ১৪৩০

  • || ১৮ শা'বান ১৪৪৫

শরীয়তপুর বার্তা
ব্রেকিং:
পণ্যমূল্য সহনীয় রাখতে সরকারের পাশাপাশি জনগণেরও নজরদারি চাই রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম সহনীয় পর্যায়ে থাকবে পুলিশকে জনগণের বন্ধু হয়ে নিঃস্বার্থ সেবা দেয়ার নির্দেশ রাষ্ট্রপতি বিশ্বের সম্ভাব্য সকল স্থানে রপ্তানি বাজার ছড়িয়ে দেয়ার আহ্বান বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা জরুরি গভীর সমুদ্র থেকে গ্যাস উত্তোলনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার পুলিশ জনগণের বন্ধু, সে কথা মাথায় রেখেই দায়িত্ব পালন করতে হবে অপরাধের ধরন বদলাচ্ছে, পুলিশকেও সেভাবে আধুনিক হতে হবে পুলিশ সপ্তাহ শুরু, উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী আইনশৃঙ্খলা সমুন্নত রাখতে পুলিশ নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে

জ্বরে আক্রান্ত শিশু, অ্যাকিউট রেসপিরেটরি ইনফেকশন নয়তো?

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ২৩ মার্চ ২০২৩  

ভোরে ঠাণ্ডা বাতাস আর বেলা বাড়তেই গরম। আবার সন্ধ্যার বাতাস ঠাণ্ডা হয়ে আসে, ক্ষণে ক্ষণে বদলায় প্রকৃতি। সব মিলিয়ে খামখেয়ালি আবহাওয়া। তার ফলে ঘরে ঘরে জ্বর, সর্দি, কাশি। সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা।
চিকিৎসকদের পরিভাষায় অ্যাকিউট রেসপিরেটরি ইনফেকশন বা ইনফ্লুয়েঞ্জা লাইক ইলনেসে ভুগছে শিশুরা। এই সময়ে কীভাবে সুস্থ রাখবেন সন্তানকে? জেনে নিন:

কীভাবে বুঝবেন আপনার শিশু অ্যাকিউট রেসপিরেটরি ইনফেকশনে ভুগছে?
উপসর্গ

>> তিন দিনের বেশি জ্বর।
>> নাক দিয়ে পানি পড়া।
>> গলা ব্যথা।
>> সারা শরীরে ব্যথা।
>> বমি।
>> পাতলা পায়খানা।
>> দ্রুত শ্বাসপ্রশ্বাস নেয়া।

এই অবস্থা দেখা দিলে করণীয়:

>> শিশুকে বেশি পরিমাণে তরল খাবার খাওয়ান।
>> পাতলা পায়খানা হলে শিশুকে স্যালাইন খাওয়ান।
>> জ্বর না কমলে গা মুছিয়ে দিতে হবে। শিশুর জ্বর, খাওয়ার পরিমাণ, প্রস্রাবের পরিমাণের কমছে কিনা, সেদিকে নজর রাখুন। পরিবারের খুদে সদস্যকে বাসক এবং তুলসি পাতার রস খাওয়ান।

তিন দিনের বেশি জ্বর, শিশুদের প্রস্রাব কমে যাওয়ার, সারাক্ষণ ঝিমুনি, স্বাভাবিকের থেকে দ্রুত শ্বাস নিলে অবশ্যই শিশুকে হাসপাতালে নিয়ে যান। শিশু যাতে অ্যাকিউট রেসপিরেটরি ইনফেকশনে না ভোগে তাই আগাম সতর্কতা নিন।

>> বারবার সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে ফেলুন। শিশুকেও তা শেখান।
>> বাইরে থেকে এসে তাড়াতাড়ি জামাকাপড় বদল করুন।
>> ভিড় থেকে শিশুকে দূরে রাখুন। মাস্ক ব্যবহার করুন।
>> হাঁচি, কাশির সময় রুমাল ব্যবহার করুন।
>> অসুস্থ শিশুকে ভুলেও স্কুলে পাঠাবেন না।
>> শিশুকে বারবার হালকা গরম পানীয় খাওয়ান।