• শনিবার ০২ মার্চ ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ১৮ ১৪৩০

  • || ২০ শা'বান ১৪৪৫

শরীয়তপুর বার্তা
ব্রেকিং:
বেইলি রোডে অগ্নিকান্ড কবলিত ভবনে ফায়ার এক্সিট না থাকায় হতাশ নতুন নতুন অপরাধ দমনে পুলিশকে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ পণ্যমূল্য সহনীয় রাখতে সরকারের পাশাপাশি জনগণেরও নজরদারি চাই রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম সহনীয় পর্যায়ে থাকবে পুলিশকে জনগণের বন্ধু হয়ে নিঃস্বার্থ সেবা দেয়ার নির্দেশ রাষ্ট্রপতি বিশ্বের সম্ভাব্য সকল স্থানে রপ্তানি বাজার ছড়িয়ে দেয়ার আহ্বান বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা জরুরি গভীর সমুদ্র থেকে গ্যাস উত্তোলনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার পুলিশ জনগণের বন্ধু, সে কথা মাথায় রেখেই দায়িত্ব পালন করতে হবে অপরাধের ধরন বদলাচ্ছে, পুলিশকেও সেভাবে আধুনিক হতে হবে

গ্রাম আদালতে দেওয়ানী মামলার ফি ২০ টাকা ফৌজদারি ১০ টাকা

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ২১ জানুয়ারি ২০২৪  

শরীয়তপুর প্রতিনিধি : ইউএনডিপি'র প্রজেক্ট অ্যানালিস্টের গ্রাম আদালত সক্রিয়করণ প্রকল্পের মাঠ পর্যায়ের কার্যক্রম পরিদর্শন ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার (২১ জানুয়ারি) সকাল ১০ টার দিকে শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার নাওডোবা ইউনিয়ন ও মূলনা ইউনিয়ন পরিষদে পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের অধিনে, বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ও ইউএনডিপির আর্থিক-কারিগরি সহযোগিতায় এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।সভায় স্থানীয় পর্যায়ে ন্যায়বিচার নিশ্চিতকল্পে গ্রাম আদালত সক্রিয়করন প্রকল্পের সঠিক বাস্তবায়নে ইউপি চেয়ারম্যান, সচিব, হিসাব সহকারী, ইউপি সদস্যদের দায়িত্ব-কর্তব্য ও চলমান অগ্রগতির বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়।

এসময় ইউএনডিপি'র প্রজেক্ট অ্যানালিস্ট মো. শাহাদাত হোসেন, শরীয়তপুর ডিস্ট্রিক্ট ম্যানেজার মো. আল ফারুক গাজী, নাওডোবা ইউপি চেয়ারম্যান মো. আলমগীর ঢালী, মূলনা ইউপি চেয়ারম্যান জলিল মাদবরসহ ইউপি সদস্য, হিসাব সহকারী, গ্রাম পুলিশ, সাংবাদিক ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন।ডিস্ট্রিক্ট ম্যানেজার মো. আল ফারুক গাজী বলেন, গ্রাম আদালতের মামলার পদ্ধতি খুবই সহজ। এখানে অল্পসময়ে সল্প খরচে সঠিক বিচার করা হয়। গ্রাম আদালতে দেওয়ানী মামলার ফি ২০ টাকা ও ফৌজদারি মামলার ফি ১০ টাকা।

ইউএনডিপি'র প্রজেক্ট অ্যানালিস্ট মো. শাহাদাত হোসেন বলেন, গ্রাম আদালতের অন্যতম উদ্দেশ্য হলো ছোটোখাটো ব্যাপারে উচ্চ আদালতে মামলার জট কমানো এবং গ্রামীন প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর বিচারক সেবা প্রাপ্তি নিশ্চিত করা। এজন্য ইউনিয়ন পরিষদের সকল প্রতিনিধিদের আরও বেশি দায়িত্বশীলভাবে কাজ করতে হবে ও প্রচারণা বৃদ্ধি করতে হবে।  তাহলেই ইউনিয়ন পর্যায়ে গ্রাম আদালত সক্রিয় করণ করা সম্ভব হবে।