• শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ১০ ১৪৩০

  • || ১২ শা'বান ১৪৪৫

শরীয়তপুর বার্তা
ব্রেকিং:
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্টের অভিনন্দন প্রতিবেশীদের সঙ্গে সুসম্পর্ক রেখেই সামুদ্রিক সম্পদ আহরণের আহ্বান সমুদ্রসীমার সম্পদ আহরণ করে কাজে লাগানোর তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর ২১ বছর সমুদ্রসীমার অধিকার নিয়ে কেউ কথা বলেনি: শেখ হাসিনা হঠাৎ টাকার মালিক হওয়ারা মনে করে ইংরেজিতে কথা বললেই স্মার্টনেস ভাষা আন্দোলন দমাতে বঙ্গবন্ধুকে কারান্তরীণ রাখা হয় : সজীব ওয়াজেদ ভাষা আন্দোলনের পথ ধরেই বাংলাদেশের মানুষ স্বাধিকার পেয়েছে অশিক্ষার অন্ধকারে কেউ থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী একুশ মাথা নত না করতে শেখায়: প্রধানমন্ত্রী একুশে পদক তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী

সরকারি প্রনোদনায় জাজিরায় ভুট্টা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা অতিক্রম

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ২২ মার্চ ২০২৩  

জাজিরা উপজেলার ১২ইউনিয়নে ভুট্টার আবাদ লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে গেছে। এ মৌসুমে অনুকূল আবহাওয়া বিরাজ করায় উপজেলার কৃষকরা বাম্পার ফলন আশা করছেন। তারা সরকার থেকে ভুট্টা চাষের জন্য সময়মতো বীজ, সার ও অন্যান্য উপকরণ পেয়েছিলেন বলে জানিয়েছেন।  আর বাজারে দামও ভালো থাকা লাভের প্রত্যাশা কৃষকদের।
 জাজিরা উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরে সূত্র জানায়, ভুট্টা চাষিরা জেলায় বেশ কয়েক বছর ধরে বাম্পার ফলন অর্জন করে আসছেন। জেলার সাতটি উপজেলায় ভুট্টা চাষ দিন দিন জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। সহজ চাষ পদ্ধতি, কম সেচ এবং বাজারে প্রচুর চাহিদা থাকা ভুট্টা চাষ জনপ্রিয়তার মূল কারণ।
 জাজিরা উপজেলা উপসহকারি কৃষি অফিসার খায়রুজ্জামান জানান, আমাদের উপজেলায় চলতি বছরে ভূট্রা আবাদের লক্ষমাত্রা ছিলো৭০ হেক্টর জমি। সরকারে প্রনোদনার বীজ সার পেয়ে এ বছর আবাদ হয়েছে ৭৭৫ হেক্টর জমিতে।  ভুট্টা সারাবছর বাজারে বিক্রি হয়। ভুট্টার লাঠিগুলো গ্রামাঞ্চলে জ্বালনি হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এর সবুজ পাতা গবাদি পশুর ‘খাদ্য’ হিসাবে ব্যবহৃত হয়। অপরিপক্ক ভুট্টার গাছগুলোও গবাদি পশুর ‘খাদ্য’ হিসাবে ব্যবহৃত হয়।
তিনি আরো জানান, দেশি ভুট্টার চেয়ে হাইব্রিড জাতের ভুট্টা চাষে লাভ বেশি। এতে রোগ বালায়ের আশঙ্কা কম।
জাজিরা উপজেলার পালেরচর ইউনিয়নের কৃষক দাদন হাওলাদার জানান, তিনি এ বছর সারে তিন  জমিতে ভুট্টার আবাদ করেছেন। ‘আমি একই জমিতে আবারও ভুট্টা চাষ করবো।’ আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেয়া বীজ সার ও কৃষি অফিসের ট্রেনিং পাইছি। আমার খেতে মাশাআল্লাহ ফলন অনেক ভাল হয়েছে।
 
বিলাশ পুর ইউনিয়নের চাষী  মিজানুর রহমান বলেন, আমার মতো বেশিরভাগ ভুট্টা চাষি একই জমিতে দুবার ভুট্টা চাষ করে থাকেন।আমরা সরকারি বীজ সার বিনামূল্রে পেয়েছি। আমাদের ইপজেলা কৃষি স্যারে ও ব্লকের স্যারে আমাদের হাতে কলমে শিখিয়ে দিয়েছে কিভাবে চাষ করতে অইব আর যতœ কিভাবে করুম। ইতোমধ্যে ভুট্টা আমারে খেতের তোলা শুরু হয়েছে। প্রতি হেক্টর জমিতে ৩০ থেকে ৩৫ মন করে হয়েছে। এখন প্রতি মণ ভুট্টা বিক্রি হচ্ছে ৮৫০ থেকে ১০৫০ টাকা দরে।

উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মোঃ জামার হোসেন জানান, এ বছর ভুট্টার আবাদও লক্ষ ছাড়িয়ে গেছে আকাশ সমান কারণ আমাদের লক্ষ মাত্রা ছিলো মাত্র ৭০ হেক্টর জমি।  সে খানে এ বছর জেলার রবি মৌসুমে ৭৭৫ হেক্টর জমিতে ভুট্টা চাষ হয়েছে। উৎপাস লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৮শ ৪০ মেট্রিক টন। এ বছর ইনশাআল্লাহ জাজিরায় উৎপাদন ৯ হাজার ৩শ মেট্রিক টন ছারিয়ে যাবে। আমরা উপজেলার কৃষকদের সরকারি প্রনোদনার পাশাপাশি প্রদর্শনী প্লটও দিয়েছি। সেই সাথে মাঠের কৃষকদের সাথে আমাদের উপসহকারি কৃষি অফিসারগন নিয়মিত যোগাযোগ রাখায় আমাদের আবাদে বৃদ্ধির সাথে সাথে উৎপাদন ও ভার হয়েছে