• রোববার ১৬ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ১ ১৪৩১

  • || ০৮ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

শরীয়তপুর বার্তা
ব্রেকিং:
তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায় শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ প্রধানমন্ত্রীকে বদলে যাওয়া জীবনের গল্প শোনালেন সুবিধাভাগীরা

জিলহজের প্রথম দশক সম্মানিত যে কারণে

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ১১ জুন ২০২৪  

জিলহজের প্রথম দশক ইসলামে বিশেষভাবে সম্মানিত। এ সময়ে ইসলামের পঞ্চস্তম্ভের একটি হজ ও গুরুত্বপূর্ণ আমল কোরবানি পালিত হয়। শাওয়াল ও জিলকদ মাসেও হজের জন্য ইহরাম বাধা যায়। কিন্তু হজের মূল কার্যক্রম; আরাফায় অবস্থান, মুজদালিফায় অবস্থান, কোরবানি ইত্যাদি এ সময়ই পালিত হয়। কোরবানির প্রধান দিন জিলহজের ১০ তারিখ। যদিও এর পরবর্তী দুদিন অর্থাৎ জিলহজের ১১ ও ১২ তারিখও কোরবানি করা যায়।

কোরআনে আল্লাহ জিলহজের প্রথম দশ রাতের শপথ করেছেন। আল্লাহ বলেন,

وَ الۡفَجۡرِوَ لَیَالٍ عَشۡرٍ وَّ الشَّفۡعِ وَ الۡوَتۡرِ
শপথ ভোরবেলার, শপথ দশ রাতের, শপথ জোড় ও বেজোড়ের। (সুরা ফাজর: ১-৩)

জাবের (রা.) বৰ্ণনা করেন যে, আল্লাহর রাসুল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, এ আয়াতে দশ হচ্ছে জিলহজ মাসের দশ দিন, বেজোড় হচ্ছে আরাফার দিন আর জোড় হচ্ছে কোরবানির দিন। (মুসনাদে আহমদ: ৩/৩২৭)

কোরআনের আরেক জায়গায় আল্লাহ তাআলা বলেছেন,

وَاَذِّنۡ فِی النَّاسِ بِالۡحَجِّ یَاۡتُوۡكَ رِجَالًا وَّ عَلٰی كُلِّ ضَامِرٍ یَّاۡتِیۡنَ مِنۡ كُلِّ فَجٍّ عَمِیۡقٍ لِّیَشۡهَدُوۡا مَنَافِعَ لَهُمۡ وَ یَذۡكُرُوا اسۡمَ اللّٰهِ فِیۡۤ اَیَّامٍ مَّعۡلُوۡمٰتٍ عَلٰی مَا رَزَقَهُمۡ مِّنۡۢ بَهِیۡمَۃِ الۡاَنۡعَامِ

মানুষের মধ্যে হজের ঘোষণা দাও; তারা তোমার কাছে আসবে পায়ে হেঁটে এবং কৃশকায় উটে চড়ে দূর পথ পাড়ি দিয়ে। যেন তারা নিজেদের কল্যাণের স্থানসমূহে হাজির হতে পারে এবং তিনি তাদেরকে চতুষ্পদ জন্তু থেকে যে রিজিক দিয়েছেন তার ওপর নির্দিষ্ট দিনসমূহে আল্লাহর নাম স্মরণ করতে পারে। (সুরা হজ: ২৮)

কোরআনের অধিকাংশ ব্যাখ্যাকারের মতে এ আয়াতে ‘নির্দিষ্ট দিনসমূহ’ বলে জিলহজের প্রথম দশ দিনকে বোঝানো হয়েছে।

হাদিসে এসেছে, এ দশ দিন যে কোনো নফল আমলেরই সওয়াব বেড়ে যায়। ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত রয়েছে, আল্লাহর রাসুল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেছেন, অন্যান্য যে কোনো সময়ের তুলনায় জিলহজের প্রথম দশ দিনের নেক কাজ আল্লাহর কাছে অধিক প্রিয়। (সহিহ বুখারি: ৯৬৯)

এ ছাড়া একাধিক হাদিসে এ সময়ে রোজা, ও জিকিরেরও বিশেষ ফজিলত বর্ণিত হয়েছে।

সহিহ বুখারির প্রখ্যাত ব্যাখ্যাকার ইবনে হাজার আসকালানি (রহ.) জিলহজের প্রথম দশকের বিশেষ মর্যাদার কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে বলেন, জিলহজের প্রথম দশকের মর্যাদার কারণ হলো, এ দিনগুলোতে ইসলামের সবগুলো মৌলিক ইবাদত অর্থাৎ নামাজ, রোজা, সদকা, ও হজ একত্রিত হয় যা অন্য কোনো সময় হয় না। (ফাতহুল বারি: ২/৫৩৪)

অর্থাৎ এ দিনগুলোতে নামাজ আদায় করা হয় সব সময়ের মতোই, প্রথম দশকের রোজা বিশেষত আরাফার দিনের রোজা বিশেষ ফজিলতপূর্ণ, ফরজ সদকা বা জাকাত সারা বছরের মতো এ সময়ও আদায় করা যায়, নফল সদকারও বিশেষ মৌসুম এটি, আর হজ শুধু এ সময়েই পালন করা যায়। বছরের অন্য কোনো সময় ইসলামের সবগুলো মৌলিক ইবাদত একসাথে পালিত হয় না। এটাই জিলহজের প্রথম দশকের বিশেষ মর্যাদার কারণ।