• শনিবার   ১৬ অক্টোবর ২০২১ ||

  • কার্তিক ১ ১৪২৮

  • || ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

শরীয়তপুর বার্তা

বঙ্গবন্ধুর রাজনীতির ধারাবাহিকতায় শেখ হাসিনাও মানুষের আস্থার স্থান

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ২৮ মার্চ ২০২১  

শরীয়তপুর প্রতিনিধিঃ পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম এমপি বলেছেন, বঙ্গবন্ধু এমন রাজনীতি করে গেছেন যার ধারাবাহিকতায় মানুষের আস্থার ঠিকানায় পরিণত হয়েছেন তারই কন্যা শেখ হাসিনা। শনিবার বিকেলে শরীয়তপুর জেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে জাতির পিতার জন্মশত বার্ষিকী, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন।

প্রধান অতিথি বলেন, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী অনুষ্ঠান সফল ভাবে সম্পন্ন হওয়ায় বিএনপি গাত্রদাহ শুরু হয়েছে। ক্ষমতার পরিবর্তনের বিষয়ে বিএনপি নেতাদের বক্তব্যের জবাবে তিনি বলেন, নির্বাচনের মাধ্যমেই এদেশের ক্ষমতা পরিবর্তন হবে। তাই আগামী নির্বাচন পর্যন্ত ধৈয্য ধরে অপেক্ষা করতে হবে আপনাদের। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে এসে বিএনপি’র স্বাধীনতার চেতনা ও মূল্যবোধের প্রতি সম্মান ও শ্রদ্ধা প্রদর্শন লোক দেখানো আনুষ্ঠানিকতা ছিল। তারা মুখে স্বাধীনতার কথা বললেও মূলত স্বাধীনতা বিরোধী সম্প্রদায়িক অপশক্তির পৃষ্ঠপোষকতা অব্যাহত রেখেছে তারা। বিএনপি ষড়যন্ত্র ও চোরাগলির রাজনীতি গত ৪ দশকের বেশি সময় ধরে চর্চা করে আসছে এবং উত্তরাধিকার সূত্রে বহন করে চলছে।

প্রতিবেশী সহ সব দেশের সঙ্গে বিএনপি বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রাখতে চায় বিএনপি নেতাদের এমন কথা শুনলে হাসি পায় উল্লেখ করে পানি সম্পদ উপমন্ত্রী বলেন, ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রনব মুখার্জীর ঢাকা সফরকালে হরতাল আহবান এবং বিএনপি নেত্রীর সাক্ষাৎ না করার অসৌজন্যতা ভারতের জনগণ নিশ্চয়ই ভূলে যায়নি। তিনি গত কয়েক দিন ধরে ঢাকা সহ দেশের বিভিন্ন স্থান বিএনপি তাদের দোসরদের দিয়ে যে নেক্কার জনক ঘটনা ঘটিয়েছে তা দেশের জনগণ আজ প্রত্যক্ষ করছে। অথচ বিএনপিই মোদী সরকারের বিজয়ের পর আনন্দে ফুল আর মিস্টি নিয়ে ভারত দুতাবাসের দরজায় পৌছানোর প্রতিযোগিতায় অবতীর্ন হয়েছিল। ক্ষমতার জন্য কখনো ভারত বিরোধী আবার কখনো ভারত প্রীতি বিএনপির রাজনীতির দ্বিচারিতাকে স্পষ্ট করে। এই অপরাজনীতি বিএনপিকে ক্রমশই জনবিচ্ছিন্ন করে তুলছে। ক্ষমতার মোহ বিএনপিকে অন্ধ করে রেখেছে। ভারতের সরকার প্রধানের সফরের বিরোধিতার আড়ালে তারা মুক্তিযুদ্ধের সুবর্ণজয়ন্তীর বিরোধিতাই করেছে। বিএনপি অবস্থান নিয়েছে ৫০ বছর আগের পরাজিত শক্তির পক্ষে।

জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ছাবেদুর রহমান খোকা সিকদার এর সভাপতিত্বে ও জেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক অনল কুমার দে’র সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ নির্বাহী কমিটির সদস্য ও শরীয়তপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ইকবাল হোসেন অপু, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সৈয়দ আব্দুল আউয়াল শামীম, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল হাসেম তপাদার, জাজিরা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোবারক আলী সিকদার, নড়িয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান একেএম ইসমাইল হক, শরীয়তপুর পৌরসভার মেয়র মোঃ পারভেজ রহমান জন, সাবেক মেয়র মোঃ রফিকুল ইসলাম কোতোয়াল।

অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা, শরীয়তপুর পৌরসভা আওয়ামীলীগের সভাপতি এমএম জাহাঙ্গীর। এ সময় উপস্থিত সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এ্যাড. মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন, পৌরসভা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আমির হোসেন, সদর উপজেলা যুবলীগ সভাপতি বিল্লাল হোসেন দিপু মিয়া, সাধারণ সম্পাদক হোসেন সরদার, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ফাহাদ হোসেন তপু, স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি আব্দুস সালাম, সাধারণ সম্পাদক তাইজুল ইসলাম সরকার, জেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক মহসীন মাদবর, যুগ্ম আহবায়ক রাশেদুজ্জামান রাশেদ প্রমূখ।