• বৃহস্পতিবার   ০১ ডিসেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৭ ১৪২৯

  • || ০৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

শরীয়তপুর বার্তা
ব্রেকিং:
বাংলাদেশ সবসময় ভারতের কাছ থেকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার পায় কর ব্যবস্থাপনা তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী ১০ টাকায় টিকিট কেটে চোখ পরীক্ষা করালেন প্রধানমন্ত্রী আইসিওয়াইএফ থেকে পাওয়া সম্মাননা প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর শিক্ষা ব্যবস্থা যাতে পিছিয়ে না যায় সে ব্যবস্থা নিচ্ছি প্লিজ যুদ্ধ থামান, সংঘাত থামাতে সংলাপ করুন: শেখ হাসিনা হানিফের সংগ্রামী জীবন নতুন প্রজন্মের রাজনৈতিক কর্মীদের দেশপ্রেম ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত করবে মোহাম্মদ হানিফ ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একজন পরীক্ষিত নেতা বাংলাদেশ যেন দুর্ভিক্ষের কবলে না পড়ে: প্রধানমন্ত্রী সংঘাত-দুর্যোগে নারীদের দুর্দশা বহুগুণ বাড়ে: প্রধানমন্ত্রী

৭ বছরের বাচ্চা একবারে সাবাড় করছে ১৫০টা মিষ্টি, ২ কিলো চালের ভাত

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ২৫ অক্টোবর ২০২২  

অনেক শিশুই খেতে ভালবাসেন। তেমনি এক শিশু ৭ বছর বয়সী রোহান।এতদিন অন্যসব শিশুর মতোই বেড়ে উঠছিল সে। কিন্তু বিগত ১৫ মাস ধরেই বেধেছে বিপত্তি! এক নিমেষেই সে সাবাড় করে দিচ্ছে দেড় কিলো চালের ভাত, ১৫০ পিস রসগোল্লা, ২০ থেকে ৩০টি রুটি। অবিশ্বাস্য হলেও ঘটনাটি সত্য।  ইতিমধ্যে খাবারের জোগান দিতে গিয়ে মাথায় হাত অভিভাবকদের।  সম্প্রতি রেহানের এই খাবার গল্প ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

ভারতীয় একাধিক গনমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, রেহান পুনিশোল গ্রামের বনো পাড়ার বাসিন্দা মহম্মদ মোজ্জাফের মল্লিকের সন্তান। বর্তমানে ক্ষুধা লাগলে খাবার না পেলে বাড়ির সদস্যদেরকে মারধর করছে এই শিশু। রেহানের বাবা মোজ্জাফের মল্লিক পেশায় একজন ফেরিওয়ালা। নিজেদের খাবার জোগার করতে গিয়ে রীতিমতো হিমশিম অবস্থা হয় তার। আর সেখানে ছেলে এই বিপুল পরিমাণ খাবার খাওয়ার ফলে চিন্তায় পড়ে গিয়েছেন তিনি। কীভাবে তার খাবার জোগার করবেন তা ভেবেই পাচ্ছেন না তিনি। বেহানের বাবার দাবি, ছেলে খুব বেশি খাচ্ছে। প্রচুর খেয়ে নিচ্ছে। আর খাবার না দিলে মারধরও করছে। যা পারছে তাই খেয়ে যাচ্ছে। রুটি খেলে ২০ থেকে ৩০টা খাচ্ছে। মিষ্টি খেলে ১০০ থেকে ১৫০ পিস খেয়ে নিচ্ছে। ভাত একসাথে দেড় থেকে দু’কিলো খাচ্ছে। ছেলের এই খাবারের জোগান আমার পক্ষে দেয়া সম্ভব নয়। আমি দিন মজুরের কাজ করি। প্রায় প্রতিদিনই ১০০০ থেকে ১২০০ টাকার খাবার খেয়ে নিচ্ছে। সেটা আমি যোগান দিতে পারছি না।

তিনি আরও জানান, বাড়িতে কোনো আমন্ত্রিত অতিথি এলে তাদেরও হাতে খাবার নিয়ে আসতে হচ্ছে নয়তো তাদের ওপরে চড়াও হচ্ছে আমার ছেলে।পুনিশোলের প্রধান রেজাউল হক মণ্ডল বলেন, সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে আমরা সম্প্রতি এই খবরটা জানতে পেরেছি। আমরা তার দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেবো। আর তার যাতে ভালো জায়গায় চিকিৎসা হয় সেদিকে আমাদের খেয়াল থাকবে। তার খাবারের যাতে সঠিকভাবে যোগান দেয়া সম্ভব হয় সেই ব্যবস্থা করছি।