• রোববার   ০৪ ডিসেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ২০ ১৪২৯

  • || ১০ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

শরীয়তপুর বার্তা
ব্রেকিং:
প্রধানমন্ত্রীর চট্টগ্রাম সফরে ৩০ প্রকল্প উদ্বোধন প্রতিবন্ধীদের ছাড়া রাষ্ট্রের সামগ্রিক উন্নয়ন সম্ভব নয়: শেখ হাসিনা গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে কত প্রাণ ঝরেছে হিসাব নেই পার্বত্য চট্টগ্রামসহ দেশের সর্বত্র শান্তি বজায় রাখতে সরকার বদ্ধপরিকর : প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে বঙ্গবন্ধু ট্রাস্টের সভা বাংলাদেশ সবসময় ভারতের কাছ থেকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার পায় কর ব্যবস্থাপনা তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী ১০ টাকায় টিকিট কেটে চোখ পরীক্ষা করালেন প্রধানমন্ত্রী আইসিওয়াইএফ থেকে পাওয়া সম্মাননা প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর শিক্ষা ব্যবস্থা যাতে পিছিয়ে না যায় সে ব্যবস্থা নিচ্ছি

মুসলিমের হক নষ্ট করার শাস্তি কী?

শরীয়তপুর বার্তা

প্রকাশিত: ৮ সেপ্টেম্বর ২০২২  

যে ব্যক্তি মুসলিমের হক নষ্ট করবে সে আল্লাহর সঙ্গে এমন অবস্থায় সাক্ষাৎ করবেন যে তিনি তার ওপর রাগান্বিত থাকবেন। যদি তা সামান্য কোনো বস্তু হয় কিংবা গাছের একটি ডালও হয়। হাদিসে পাকে নবিজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বিষয়টি হাদিসে পাকে সুস্পষ্ট করেছেন এভাবে-

হজরত আবু উমামাহ রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেছেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি কসমের মাধ্যমে কোনো মুসলিমের হক বিনষ্ট করে তার জন্য আল্লাহ জাহান্নাম ওয়াজিব করে রেখেছেন এবং জান্নাত হারাম করে রেখেছেন। (নাউজুবিল্লাহ) তখন এক সাহাবি জিজ্ঞাসা করলেন, হে আল্লাহর রাসুল! অতি সামান্য বস্তু হলেও। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, আরাক (বাবলা গাছের মতো এক ধরনের কাঁটাযুক্ত) গাছের ডাল হলেও এ শাস্তি দেওয়া হবে।’ (মুসলিম)

মুসলিমের হক নষ্ট করা পাপের কাজ। তদুপরি মিথ্যা কসম খেয়ে কারো হক নষ্ট করা মহাপাপ। যার শাস্তি হবে জান্নাত হতে বঞ্চিত হয়ে জাহান্নামে প্রবেশ। সে হক ছোট হোক আর বড়ই হোক। তাকে শাস্তি ভোগ করতেই হবে। কেননা সে ইসলামের হক উপলব্ধি করেনি এবং আল্লাহর নামের মর্যাদাও রক্ষা করেনি।

হাদিস থেকে শিক্ষণীয় বিষয়

১. অত্যাচার বা জুলুম হলো সমস্ত অমঙ্গলের উৎস। ন্যায় বিচার থেকে এবং সমস্ত কল্যাণ থেকে মানুষকে দূরে রাখে। যখন কোনো জাতির মধ্যে অত্যাচার বা জুলুম প্রবেশ করবে, তখন সে জাতি ধ্বংস হয়ে যাবে। আর যখন কোনো গ্রামে অথবা শহরে অত্যাচার বা জুলুম প্রবেশ করবে, তখন সেই গ্রাম অথবা শহর নষ্ট হয়ে যাবে। তাই প্রকৃত ইসলাম ধর্ম লোকের অধিকার মেরে দেওয়া হারাম করে দিয়েছে।

২. প্রকৃত ইসলামি জীবন ব্যবস্থা মানুষের অধিকার মেরে দেওয়া থেকে এবং অন্যায়  অত্যাচার এবং জুলুম করা থেকে সতর্ক করে। অপরের অধিকার নষ্ট করার বিষয়েও সতর্ক করে। যদিও অত্যাচারিত ব্যক্তির কাছে দলিল প্রমাণ কিছু না থাকে। অত্যাচারিত ব্যক্তির কাছে তার অধিকারের দলিল প্রমাণ কিছূ না থাকার কারণে তার প্রতি জুলুম করে তার অধিকার নষ্ট করা বৈধ নয়। কেননা মহান আল্লাহর কাছে কোনো ব্যক্তির অধিকারের দলিল প্রমাণ কিছু না থাকার কারণে তার অধিকার নষ্ট হয় না। প্রকৃত ইসলাম ধর্ম সব জাতির মানুষের অধিকারগুলির সংরক্ষণ করে। এবং এতে ধর্মের কারণে অথবা বর্ণের কারণে কোনো পার্থক্য করে না। এটির দ্বারা প্রমাণিত হয় যে, প্রকৃত ইসলাম ধর্ম সব জাতির মানুষের অধিকারগুলির সংরক্ষণ করে। এই বিষয়টি প্রকৃত ইসলাম ধর্মের একটি মহা বৈশিষ্ট্য।